ভোটার আইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি অস্পষ্ঠ বা অসুন্দর? জানুন ভোটার আইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করার অফিসিয়াল নিয়ম।

অনেকেরই জাতীয় পরিচয়পত্রে তোলা ছবি এতই বাজে এসেছে যে আইডি কার্ডের ছবি দেখে ব্যক্তির পরিচয় যাচাই করা সম্ভব হয় না। তাই যাদের ভোটার আইডি কার্ডের অস্পষ্ঠ ছবি নিয়ে অসুবিধা হচ্ছে, তারা সহজ কয়েকটি ধাপেই NID কার্ডে ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন করতে পারেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করার বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে জানাব, কিভাবে আপনার ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন করবেন এ নিয়ে বিস্তারিত।

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন করার জন্য আপনি যেই এলাকার ভোটার, সেই এলাকার সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে সশরীরে উপস্থিত হয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম-২ পূরণ করে আবেদন করতে হবে। আবেদন ফি বাবদ (ভ্যাটসহ) ২৩০/- টাকা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।

বিকাশের মাধ্যমে ভোটার আইডি সংশোধন ফি জমা দিতে পারবেন।

আবেদনের পরে সংস্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিস নতুনভাবে আপনার ছবি ও স্বাক্ষর নিবে এবং তা জাতীয় পরিচয় পত্র সার্ভারে প্রেরণ করা হবে।

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তনের আবেদন একটি “খ” ক্যাটাগরির আবেদন। তাই এ ধরণের আবেদনগুলো জেলা নির্বাচন অফিসার অনুমোদন করেন। দেখুন এনআইডি সংশোধন হতে কতদিন লাগে

ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তন আবেদন অনুমোদন হলে আপনাকে তা Mobile SMS এর মাধ্যমে জানানো হবে। তারপর আপনি অনলাইন থেকে NID Card Download করতে পারবেন। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য, আপনি নতুনভাবে Smart Card পাওয়ার জন্য স্মার্ট কার্ড রিইস্যুর আবেদন করতে হবে।

ছবি পরিবর্তনের আবেদন প্রক্রিয়াটি নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো:

১. জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ২ পূরণ করুন

প্রথমে আপনি এনআইডি কার্ডের তথ্য সংশোধন ফরম ২ Download করে Print করে নিন। এবার প্রিন্ট করা ফরমে আপনার তথ্য নিচের দেয়া ছবি অনুসরণ করে পূরণ করুন। তথ্য ছকের অপ্রয়োজনীয় অংশ কলম দিয়ে কেটে দিন।

ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পরিবর্তন আবেদন

২. ফি পরিশোধ করুন

ছবি ও স্বাক্ষর যেহেতু জাতীয় পরিচয়পত্রের মূল তথ্য এগুলো সংশোধনও জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য সংশোধন ক্যাটাগরির মধ্যে পড়বে। তাই এ ধরণের সংশোধনের জন্য NID Info Correction ক্যাটাগরিতে ২৩০/- টাকা ফি বিকাশ বা রকেটের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে।

দেখুন কিভাবে বিকাশের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র ফি জমা দিবেন। আবেদন ফরমে ৫ নম্বর অংশে, ফি জমা দানের রশিদ হিসেবে লিখতে পারেন- বিকাশ Transaction ID লিখে দিতে পারেন।

উল্লেখ্য, জাতীয় পরিচয়পত্র সেবা সংক্রান্ত কোন ফি এখন আর চালানের মাধ্যমে জমা দেয়া যায় না।

৩. উপজেলা নির্বাচন অফিসে আবেদন জমা দিন

এবার পূরণ করা আবেদন ফরমটি সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে জমা দিন। আবেদন ফরমের সাথে অবশ্যই আপনার বর্তমান জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি সংযুক্ত করতে হবে।

সংস্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে আপনার নতুন ছবি বা স্বাক্ষর নিবে এবং তা জাতীয় পরিচয়পত্রের সার্ভার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের জন্য Upload করবে।

এনআইডি কার্ডের ছবি ও স্বাক্ষর পরিবর্তনের আবেদন জেলা নির্বাচন অফিস থেকে অনুমোদন করা হয়। দেখতে পারেন- ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কতদিন লাগে

৪. সংশোধিত জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করুন

আবেদন অনুমোদন হওয়ার পর NID Wing অর্থাৎ জাতীয় পরিচয়পত্রের Website থেকে সংশোধিত ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, যাদের Smart Card রয়েছে, তারা কিন্তু আর নতুন Smart Card আপাতত পাবেন না। আপনাকে আবার নতুনভাবে ফি দিয়ে স্মার্ট কার্ড রিইস্যুর জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

FAQs

ছবি পরিবর্তনের পর আমি কি নতুন স্মার্ট কার্ড পাব?

না। জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য সংশোধন করার পর অনলাইন থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করে লেমিনেটিং করে ব্যবহার করতে পারবেন। নতুন স্মার্ট কার্ডের জন্য, ফি পরিশোধ করে স্মার্ট কার্ড রিইস্যুর আবেদন করতে হবে।

কিভাবে ভোটার আইডি কার্ডের স্বাক্ষর পরিবর্তন করব?

ভোটার আইডি কার্ডের স্বাক্ষর পরিবর্তন করার জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম-২ পূরণ করে ও ফি পরিশোধ করে আবেদন করতে হবে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত আরও তথ্যের লিংক

সংশোধনভোটার আইডি কার্ড সংশোধন
ফিভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত টাকা লাগে
সংশোধনের ধরণভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে
ডাউনলোডভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড
ক্যাটাগরিভোটার আইডি কার্ড
হোমপেইজEservicesbd

Please Subscribe our YouTube Channel

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।