অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন আবেদন করার নিয়ম

অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন, সংশোধনের ধরণ, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, সংশোধন ফি ও আবেদন করার নিয়ম বিস্তারিত।

কিভাবে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন (nid songsodhon) করবেন, বিভিন্ন ধরণের ভুলের জন্য কি কি প্রমানপত্র দেয়া লাগবে এবং কিভাবে আপনার কম্পিউটার বা আপনার মোবাইল দিয়ে অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ফরম পূরণ করবেন তা দেখিয়ে দিব।

আমাদের প্রায় সবারই জাতীয় পরিচয়পত্রে বিভিন্ন ধরণের ভুল রয়েছে। কারো নামের ভুল, পিতা মাতার নামের ভুল, জন্মতারিখ, ঠিকানার ভুল ইত্যাদি। কিন্তু অনেকেই জানেন না, অনলাইনে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের বিশেষ সুযোগ রয়েছে।

ঘরে বসেই যথাযথ প্রমাণসহ অনলাইনে আবেদন করে ১৫ থেকে ২০ দিনের মধ্যে এই ভুলগুলো সংশোধন করতে পারবেন।

ভোটার আইডি বা জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধন নিয়ে যে কোন প্রশ্ন করতে বা উত্তর পেতে, ভিজিট করুন ব্যবহারকারীদের ফোরামে- E-Servicesbd Forum

এক নজরে সম্পূর্ণ লেখা

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কি কি লাগে জেনে নিন। জাতীয় পরিচয়পত্রের সামনের দিকে যে তথ্যসমূহ রয়েছে যেমন,

  • নাম
  • পিতার নাম
  • মাতার নাম ও
  • জন্মতারিখ

ইত্যাদি সংশোধন এই ক্যাটাগরির অন্তর্ভুক্ত। এ তথ্যগুলোর যে কোন একটি বা সবগুলো একসাথে পরিবর্তনের জন্য একই পরিমাণ ফি দিতে হবে।

নাম সংশোধন

নাম সংশোধনের জন্য বেশি গ্রহণযোগ্য প্রমাণপত্র হচ্ছে এসএসসি, এইচএসসি বা সমমানের সনদ (SSC and HSC Certificate)

যদি কারো এসএসসি সনদ না থাকে এক্ষেত্রে নিম্মোক্ত ডকুমেন্ট গুলোর যে কোন ১ টি বা ২ টি বা সবগুলো  সাবমিট করতে পারেন।

নাম সংশোধনের জন্য যে প্রমাণপত্রগুলো প্রয়োজনঃ (যেকোন ১টি)

  • এসএসসি বা এইচএসসি অথবা সমমানের সনদ
  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ
  • পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • এমপিওসিট/সার্ভিস বহি
  • বিবাহের কাবিন নামা

পিতা ও মাতার নাম সংশোধন করার নিয়ম

পিতা ও মাতার নাম সংশোধনের জন্য এসএসসি, এইচএসসি বা সমমানের সনদ (SSC and HSC Certificate) এবং একই সাথে পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধনের কপি দাখিল করতে হয়।

পিতা-মাতার নাম সংশোধনের জন্য যে প্রমাণপত্রগুলো প্রয়োজনঃ

  • এসএসসি বা এইচএসসি অথবা সমমানের সনদ, অথবা
  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ, অথবা
  • পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স

এবং নিম্মোক্ত যে কোন ১ টি

  • পিতা-মাতার জাতীয় পরিচয়পত্র
  • পিতা-মাতার জন্ম নিবন্ধন
  • চাকুরীজীবিদের ক্ষেত্রে অফিস প্রধানের প্রত্যয়ন
  • পিতার সকল সন্তানদের জন্মের ক্রম অনুযায়ী নাম ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর উল্লেখ পূর্বক ওয়ারিশন সনদ/প্রত্যয়নপত্র
  • ভাই-বোনের জাতীয় পরিচয়পত্র

ভোটার আইডি কার্ড জন্ম তারিখ সংশোধন করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড জন্ম তারিখ সংশোধনের জন্য সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য প্রমাণপত্র হচ্ছে এসএসসি (SSC Certificate)

যদি কারো এসএসসি সনদ না থাকে এক্ষেত্রে নিম্মোক্ত ডকুমেন্ট গুলোর যে কোন ১ টি বা ২ টি বা সবগুলো  সাবমিট করতে পারেন।

জন্মতারিখ সংশোধনের জন্য যে প্রমাণপত্রগুলো প্রয়োজনঃ (যেকোন ১টি)

  • এসএসসি বা এইচএসসি অথবা সমমানের সনদ
  • পাসপোর্ট
  • অনলাইন জন্ম নিবন্ধন
  • ড্রাইভিং লাইসেন্স

আবেদন ফি- ২৩০ টাকা (ভ্যাটসহ)

পড়তে পারেন – কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি পরিশোধ করবেন

জাতীয় পরিচয়পত্রের অন্যান্য তথ্য সংশোধন

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন

জাতীয় পরিচয়পত্রের অন্যান্য তথ্যের মধ্যে রয়েছে। শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা, মোবাইল নম্বর, ধর্ম, ঠিকানা ইত্যাদি।

আবেদন ফি- ১১৫ টাকা (ভ্যাটসহ)

ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা পরিবর্তন

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ডের ঠিকানা পরিবর্তন করা যায়না। এ জন্য আপনাকে একটি ঠিকানা পরিবর্তন ফরম পূরণ করে আপনার সংশ্লিষ্ট নির্বাচন অফিসে জমা দিতে হবে।

আসুন এবার জানি, কিভাবে কম্পিউটার বা মোবাইল দিয়ে অনলাইনে জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধনের আবেদন করবেন।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন ফি কত

সংশোধনের ধরণফি’র পরিমাণ
এনআইডির তথ্য সংশোধন – NID Info Correction২৩০ টাকা
অন্যান্য তথ্য সংশোধন – Other Info Correction ১১৫ টাকা
উভয় তথ্য সংশোধন – Both Info Correction৩৪৫ টাকা
রিইস্যু – Duplicate Regular৩৪৫ টাকা
রিইস্যু জরুরী – Duplicate Urgent ৫৭৫ টাকা
জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন আবেদন করার নিয়ম

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন অনলাইন আবেদন করার জন্য প্রথমে জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে আপনার NID নম্বর, জন্মতারিখ ও ঠিকানা দিয়ে আপনার একাউন্ট রেজিষ্ট্রেশন করবেন। এরপর, আপনার একাউন্টে লগ ইন করে, আপনার প্রোফাইল থেকে ভুল তথ্য গুলো এডিট করবেন। ভুল তথ্য সংশোধনের ধরণ অনুযায়ী NID Service Fee প্রদান করবেন। সবশেষে আপনার সঠিক তথ্যের প্রমাণ হিসেবে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট বা কাগজপত্রাদি স্ক্যান করে আপলোড করবেন এবং আবেদন সাবমিট করবেন।

কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে একাউন্ট রেজিষ্টার করবেন

জাতীয় পরিচয় পত্র সংশোধনের জন্য নিম্মোক্ত ধাপগুলো আপনাকে অনুসরণ করতে হবে।

ধাপ ১: ডকুমেন্টসগুলোর স্ক্যান/ ছবি নেয়া

NID সংশোধনের আবেদন করার পূর্বে আপনার সংশোধনের ধরন অনুযায়ী, প্রমাণপত্রগুলো স্ক্যান করে সেইভ করে নিন।। কম্পিউটার ও স্ক্যানার থাকলে খুবই ভাল। না থাকলে মোবাইলে ভাল আলোতে, সোজাসুজি ভাবে ছবি তুলে নিন। ছবিটি সুন্দরভাবে ক্রপ করে নিন এবং প্রয়োজন হলে Brightness ও Contrast বাড়িয়ে নিন।

ডকুমেন্টের স্ক্যানড কপি বা ছবিগুলো আপনার কম্পিউটারের কোন নির্দিষ্ট ফোল্ডার বা মোবাইলের গ্যালারিতে রাখুন।

ধাপ ২: NID ওয়েবসাইটে রেজিষ্ট্রেশন

এবার কম্পিউটার থেকে নির্বাচন কমিশনের জাতীয় পরিচয়পত্র উইং ওয়েবসাইটে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের একাউন্টে রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে।

রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়া আগে সহজ ছিল, বর্তমানে ফেইস ভেরিফিকেশন করতে হয়। ফেইস ভেরিফিকেশনের জন্য আপনাকে নির্বাচন কমিশনের মোবাইল এপ ইনস্টল করতে হবে। নিচের লিংকে প্রক্রিয়াটি দেখতে পারেন।

কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে রেজিষ্ট্রেশন করবেন

ধাপ ৩: তথ্য সংশোধন

সফলভাবে রেজিষ্ট্রেশন করা হলে, আপনি NID একাউন্টে লগ ইন করবেন। তখন, আপনার সামনে নিচের মত একটি পেইজ আসবে।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন

এখানে ৩ ধরণের তথ্য রয়েছে, ব্যক্তিগত তথ্য, অন্যান্য তথ্য ও ঠিকানা। ব্যক্তিগত তথ্য সংশোধন করার জন্য, উপরের ডান পাশে নীল রংয়ের এডিট বাটনে ক্লিক করবেন। তারপর নিচের মত পেইজ আসবে। এখানে আপনি তথ্যগুলো পুনরায় টাইপ করে এডিট করার অপশন পাবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন

আপনি যে তথ্যটি সংশোধন করতে চান, তার বাম পাশের টিক অপশনে ক্লিক করুন। এভাবে আপনার ভুল তথ্যগুলো প্রমাণপত্রের সাথে মিল রেখে সঠিকভাবে টাইপ করুন।

তারপর, পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন। এখানে আপনার সংশোধন করা তথ্যের পূর্বরুপ ও সংশোধিত রুপ দেখতে পাবেন। সব ঠিক থাকলে আবারও পরবর্তী বাটনে ক্লিক করুন

ধাপ ৪: ফি প্রদান

এখন, আপনাকে আপনার ভুল তথ্যের ধরণ অনুযায়ী ফি প্রদান করতে হবে। মনে রাখবেন, আপনার কম্পিউটার বা মোবাইলের এতক্ষণ যা করেছেন তা ক্লোজ করবেন না।

ফি প্রদান করেই আপনাকে আবার আবেদনের বাকি কাজ শেষ করতে হবে।

আপনি, রকেট, বিকাশ, ওকে ওয়ালেট থেকে খুব সহজেই NID Fee পরিশোধ করতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফি জমা দেওয়ার নিয়ম

তথ্য সংশোধনের জন্য প্রথমবার আবেদনের ক্ষেত্রে ২০০ টাকা ফি এবং ১৫% ভ্যাট ৩০ টাকা, মোট ২৩০ টাকা ফি প্রদান করতে হবে।

যেহেতু বিকাশ অধিক ব্যবহৃত, হয়তো আপনার ও বিকাশ একাউন্ট রয়েছে। দেখুন কিভাবে বিকাশ হতে জাতীয় পরিচয়পত্র ফি পরিশোধ করবেন।

বিকাশের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্রের (NID Fee) প্রদান

বিকাশের মাধ্যমে ফি দিতে বিকাশ এ্যাপ থেকে আপনার বিকাশ একাউন্টে লগইন করুন। এবং নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

  1. পে বিল অপশনে যান
  2. সরকারি ফি অপশনে ক্লিক করুন এবং NID Service অপশনটি বাছাই করুন।
  3. আপনার আইডি নম্বরটি ইংরেজিতে লিখুন
  4. আপনার আবেদনের ধরণ বাছাই করুন।
বিকাশে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ
বিকাশে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ

এরপর আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন নম্বর দিয়ে ফি পরিশোধ করুন। ফি পরিশোধ করা হলে আপনি জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে আবার ফিরে জান এবং প্রমাণপত্রসমূহ আপলোড করে আবেদনটি সাবমিট করুন।

ধাপ ৫: প্রমাণপত্র / ডকুমেন্ট আপলোড ও আবেদন সাবমিট

আপনাকে ১ম ধাপেই প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট গুলো স্ক্যান বা ছবি তুলে একটি ফোল্ডারে রাখার জন্য বলেছিলাম। এখন প্রয়োজন মোতাবেক আপনার ডকুমেন্ট গুলো আপলোড করে আবেদন সাবমিট করতে পারবেন।

ধাপ ৬: জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ডাউনলোড

আবেদন সাবমিট করার পর, ড্যাশবোর্ডে ফিরে আসুন। উপরের দিকে আবেদনটি ডাউনলোড করার একটি লিংক দেখতে পাবেন। লিংকে ক্লিক করে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন ফরম ডাউনলোড করে নিজের কাছে সংরক্ষণ করুন।

ভোটার আইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন নিয়ে যে কোন প্রশ্ন করতে বা উত্তর পেতে, ভিজিট করুন ব্যবহারকারীদের ফোরামে- E-Servicesbd Forum

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন জটিলতা

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনে কিছু জটিলতা হতে পারে যদি আপনার কাছে প্রয়োজনীয় প্রমাণপত্র না থাকে। কারণ প্রমাণপত্র ছাড়া ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করা যাবে না।

তাছাড়া, প্রমাণপত্র হিসেবে দেওয়া আপনার ডকুমেন্টগুলোতেও শুদ্ধভাবে আপনার তথ্য থাকতে হবে। যেমন ধরুন, আপনার এনআইডিতে নাম- মোঃ কামাল উদ্দিন। কিন্তু আপনি চান আপনার শুদ্ধ নাম মোঃ কামাল হোসেন।

এক্ষেত্রে আপনার প্রমাণ হিসেবে দেওয়া কাগজপত্রে অবশ্যই- মোঃ কামাল হোসেন থাকতে হবে। যদি সেখানে, কামাল হোসেন বা মোঃ কামাল থাকে সেক্ষেত্রে সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ভোটার আইডি কার্ড সংশোধন করতে কত দিন লাগে

বর্তমান সময়ে দেখা যাচ্ছে, অনলাইনে উপযুক্ত প্রমাণপত্র আপলোড করে সঠিকভাবে আবেদন করার পর ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই আবেদন অনুমোদন হয়ে যায়। কিছু ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কোন ভেরিফিকেশনের জন্য হয়তো আরো ৫-১০ দিন দেরি হতে পারে।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন সংক্রান্ত প্রশ্ন ও উত্তর

ভোটার আইডি কার্ড নাম সংশোধন করতে কি কি লাগে?

ভোটার আইডি কার্ডের নাম সংশোধনের জন্য সাধারণত প্রয়োজন এসএসসি সনদ, ড্রাইভিং লাইসেন্স বা পাসপোর্ট। এগুলোর না থাকলে, জন্ম নিবন্ধন, সরকারী চাকুরির সার্ভিস বইয়ের কপি, বিয়ের কাবিন ইত্যাদিও দেয়া যায়।

কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করা যায়?

জাতীয় পরিচয় পত্রের যে কোন ভুল সংশোধনের জন্য উপযুক্ত প্রমান আপলোড করে অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনটি কর্তৃপক্ষ অনুমোদন করলে অনলাইন থেকে এনআইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে কত দিন লাগে?

সাধারণত অনলাইনে উপযুক্ত প্রমাণপত্র আপলোড করে সঠিকভাবে আবেদন করার পর ২০ থেকে ২৫ দিনের মধ্যে আবেদন অনুমোদন হয়ে যায়। কিছু ক্ষেত্রে অতিরিক্ত কোন ভেরিফিকেশনের জন্য ৫-১০ দিন দেরি হতে পারে।

Similar Posts

49 Comments

  1. ফর্ম টা প্রিন্ট করে নিজের কাছে রাখতে পারেন, অফিসে জমা দিতে হবেনা। এখন যেহেতু নির্বাচন চলছে, একটু সময় লাগতে পারে। সাধারণত ১৫-২০ দিনের মধ্যে সংশোধন হয়ে যায়।

    1. ভাই আমার আবেদন এর ৩ মাস হয়েছে কিন্তু এখন ও সংশোধন হয় নাই 😔 একটু জানাবেন আমি কী করতে পারি??

          1. হেড অফিসের ঠিকানা- Nirbachan Bhaban (7th – 8th Floor), Agargaon, Dhaka-1207, হেল্পলাইন নম্বর- 105, আপনার উপজেলা থেকে বা গুগল সার্চ করে জেনে নিন বিভাগীয় অফিসের ঠিকানা।

  2. নোটারী প্রয়োজন হবেনা, এসএসসি সনদ বা পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্স বা ভাই-বোনের আইডি কার্ড, বা অন্য কোন প্রমাণপত্র হলে চলবে।

    1. আমার বাবা মায়ের NID card এ তাদের আংশিক নাম পরিবর্তন করতে চাই, বাবার নাম হাফেজ আমিরুল ইসলাম থেকে মোঃ আমিরুল ইসলাম করতে চাই। মায়ের নামের আগে বেগম কেটে মোসাঃ বসাতে চাই। আমার সব ভাই বোনের সনদে এভাবেই দেয়া। এখন বাবা মার পাসপোর্ট, লাইসেন্স,কাবিননামা,কোনো সার্টিফিকেট,জন্মসনদ নেই। কিভাবে পরিবর্তন করতে পারি? অমিল থাকার কারনে ইতিমধ্যে কয়েক জাগায় সমস্যায় ও পরেছি।

      1. কোন ডকুমেন্ট না থাকলে করা যাবে না। ডকুমেন্ট তো লাগবেই। সন্তানদের আইডি কার্ডের কপিতে যদি ঠিক থাকে, যে কোন ২ সন্তানের জাতীয় পরিচয়পত্র আপলোড করে আবেদন করতে পারেন।

  3. আমার nid কাডটি আগের পাসপোট এর সাথে 7 বছর আগে পিসে। পাসপোট এর বয়স 01 may 1990। nid এর বয়স 12.10.1983.আর নাম এর শেষ অংশ সামান্য বুল এখন আমি পাসপোট এর সাথে মিলাতে চাই সেই খেতরে আমি কি করবো বলবেন কি

  4. পাসপোর্টের স্ক্যানড কপি আপলোড করবেন পাশাপাশি আরো একটি প্রমাণ জন্ম নিবন্ধন বা এসএসসি সনদ আপলোড করলে ভাল হবে। 100% এপ্রুভ হবে। বিস্তারিত কোন প্রশ্ন থাকলে ফেইসবুক পেইজে প্রশ্ন করুন https://www.facebook.com/eservicesbdofficial

    1. আমার নামে ভূল বয়সের ভূল এবং আমার মায়ের নামেও ভূল রয়েছে এ ক্রেত্রে আমার আইডি কি সংশোধন করতে পারব?

  5. আমার এন আইডি কার্ড নাম পদবি সংশোধন করতে চাই জন্ম নিবন্ধ নাম অঞ্জন দাশ – আর ওয়ানলাইন এন আইডি নাম আশিষ কুমার অঞ্জন

  6. জন্ম নিবন্ধনের পাশাপাশি এসএসসি সনদ বা পাসপোর্ট বা ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রয়োজন হবে। বিস্তারিত জানতে আমাদের ফেইসবুক পেইজে মেসেজ দিতে পারেন।

  7. আমার NID তে মায়ের নাম, এবং আমার বৈবাহিক অবস্থা সংশোধন করেছি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাবমিট করেছি , কিন্তু কিছুদিন আগে আমার মোবাইলে এস এম এস আসে, আমার বিবাহের নিকাহনামা এবং এস এস সির সনদ সাবমিট করার জন্য আমার পূর্বের ডাউনলোডকৃত ফরম নাম্বার (…….) প্রেরন করা হয়েছে , কিন্তু কোথায় প্রেরন করা হয়েছে বলে নাই , এখন আমি উক্ত নিকাহনামা এবং এস এস সির সনদ কোথায় সাবমিট করবো এবং কিভাবে করবো ?

  8. আপনি যে ‍উপজেলায় ভোটার হয়েছিলেন, সেই উপজেলা নির্বাচন অফিসে বাকি কাগজগুলো নিয়ে যোগাযোগ করেন। আপনার আবেদনটি ঢাকা থেকে উপজেলা নির্বাচন অফিসে প্রেরণ করা হয়েছে।

  9. আমার আইডি কার্ডে একাধীক ভুল আছে।
    নাম, গ্রামের নাম, পোস্ট অফিসের নাম, ইত্যাদি।
    আনি প্রথমবার সসংশোধন করতে চাই।
    আমি এর জন্য কত খরচ হবে জানার প্রয়োজন অনুভব করছি।

  10. ২৩৬ টাকা। তবে পোস্ট অফিসের নাম সংশোধন হয় না। শুধু গ্রামের নাম পরিবর্তন করতে পারবেন। এর জন্য প্রমাণ হিসেবে প্রয়োজনীয় কাগজ আপলোড করতে হবে।

  11. আমার স্ত্রী এর এসএসসি থেকে মাস্টার্স সকল
    সার্টিফিকেটে নাম Sumsun Nahar।
    আর NID তে Mosammat Samsun Nahar,
    সার্টিফিকেট অনুযায়ী NID করতে হলে করণীয় কী? জানালে কৃতজ্ঞ থাকবো।

  12. অনলাইনে আবেদন করেন, এসএসসি ও এইচএসসি এই ২টি সার্টিফিকেট স্ক্যান করে আপলোড করতে আবেদনের সময়। আবেদন করার পদ্ধতি এখানে -https://www.eservicesbd.com/2021/08/nid-card-correction.html

  13. আমার ভাই এর নামের বানামে ভুল আছে কিন্তু ওকে স্মাট কাডের জন্য ছিলিপ দিয়েছে। আগের কাডে যেহেতু ভুল আছে তাই মনে হয় স্মাট কাডে ও ভুল থাকবে।আমরা কি এখন ভুল সংশোধনের জন্য আবেদন করতে পারবো।

    1. আবেদন করতে পারবেন। তবে স্মার্ট কার্ড ইতোমধ্যে প্রস্তুত হয়ে গেলে, কার্ডে পূর্বের নাম ই থাকবে কিন্তু অনলাইন ডাটাবেইজে শুদ্ধ নাম থাকবে। তবে নাম সংশোধন হলে, অনলাইন থেকেই কাগজের আইডি কার্ড ডাউনলোড ও লেমিনেট করে ব্যবহার করতে পারবেন। ভবিষ্যতে নতুন প্লাস্টিক স্মার্ট কার্ডের জন্য রিইস্যুর আবেদন করতে পারবেন।

  14. NEED HELP!
    What documents do I need to submit for correcting the following mistakes of my NID card info and other info.
    1) A little spelling mistake in my English name. They wrote “Sovrav” instead of “Sourav”
    2) Mistake in my birth certificate registration Number
    3) Religion (NOTE: I didn’t convert to a different religion. It was a mistake from their side.)

  15. আমার মায়ের এন আইডির নাম থেকে মোছাঃ শব্দটি মুছে ফেলতে চাই। কারন আমার ssc certificate এ মায়ের নামে মোছাঃ নাই। মায়ের জন্ম নিবন্ধন এ মোছাঃ আছে। nid ঠিক করতে জন্ম নিবন্ধন ঠিক করতে হয়।জন্ম নিবন্ধন ঠিক করতে নানা নানির জন্ম নিবন্ধন ঠিক করতে হয়। আমার মায়ের কোন সনদ নাই,পাসপোর্ট নাই, ড্রাই ভিং সনদ নাই, কাবিন নামা নাই।এখন আমি কীভাবে আমার মায়ের এনআইডি কার্ড থেকে মোছাঃ শব্দটি মুছে ফেলতে পারি। জানালে উপকৃত হব।

    1. অনলাইনে সংশোধনের জন্য আবেদন করুন। নাম সংশোধনের ক্ষেত্রে এসএসসির সনদ বা পাসপোর্ট দরকার হয়। না থাকলে চাকুরীর সার্ভিস বই/ এমপিও কপি/ বিয়ের কাবিন নামা দিলেও চলবে। তাও না থাকলে যে কোন ২ সন্তানের আইডি কার্ডের স্ক্যান কপি দিতে হবে যেখানে নাম শুদ্ধভাবে আছে।

  16. আসসালামু আলাইকুম। আমি গত জুনে আমার এনআইডির নাম সঙ্গশোধনের জন্য আবেদন করেছিলাম। এখনও পেন্ডিং। সার্টিফিকেট দিয়ে আবেদন করেছি। কি হলো বুঝতে পারছি না

  17. আমি একটা নাম সংশোধনী আবেদন করেছি এক বছর হলো। মোঃ পাশা মিয়া এর পরিবর্তে মোঃ মিলন মিয়া হবে। এটা সংশোধনীর কোন ক্যাটাগরীতে পড়ে? ক,খ,গ,নাকি ঘ ক্যাটাগরি। আর ফোন থেকে কি অনলাইনে আগের আবেদন বাতিল করে নতুন করে আবেদন করা যায় অনলাইনে?
    অথবা অনলাইনে আবেদন পেন্ডিং থাকা অবস্থায় উপজেলা পর্যায়ে গিয়ে স্বহস্তে ফর্ম পূরণ করে নতুন আবার আবেদন করা যাবে?

    1. আবেদন অনলাইনে পেন্ডিং থাকার কারণ হচ্ছে, যাচাই বাছাই করার জন্য আপনার আবেদনটি হয়তো উপজেলায় ট্রান্সফার করা হয়েছে। আগে আপনার উপজেলা অফিসে যোগাযোগ করুন। সেখানে না হলে আপনার বিভাগীয় সার্ভার অফিসে সংশোধনীর জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে যান। ১ দিনেেই সমাধান হতে পারে।

  18. আসসালামু আলাইকুম ভাই,
    আমার NID তে মায়ের নাম শিউলী আক্তার না উঠে লিউলী আক্তার উঠেছে।।এইটা ঠিক করার জন্য কি আমার জন্মনিবন্ধন আর আমার HSC certificate জমা দিলেই হবে??
    আমার মায়ের NID তে আবার নাম এর বানান শিউলি দেয়া (র-ই কার দিয়ে) অথচ আমি শিউলী (ঈ -কার দিয়ে দিতে চাই) এই জন্য মায়ের NiD কার্ডের কপি দিতে চাচ্ছি না।।
    অনুগ্রহ করে জানা থাকলে বলবেন।

    1. আপনার জন্ম নিবন্ধন আর এসএসসি-এইচএসসি ২টা আপলোড করেই আবেদন করেন। পাশাপাশি আপনার কোন ভাইয়ের আইডি কার্ড থাকলে দিতে পারেন, যদি সেখানে শুদ্ধ থাকে।

Comments are closed.