অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার নিয়ম ২০২২

মোবাইল থেকেই অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয় ও ট্রেনের টিকিটের মূল্য পরিশোধ কিভাবে করবেন দেখুন

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

বর্তমানে ট্রেনের শতভাগ টিকিটই অনলাইন হতে ক্রয় করা যায়। আপনারা যারা জানেন না কিভাবে অনলাইনে ট্রেনের টিকেট সংগ্রহ করতে হয়, তাদের জন্য বিস্তারিত ও ছবিসহ দেখাব বাংলাদেশ রেলওয়ে অনলাইন টিকিট কাটার নিয়ম। আপনি নিজেই আপনার মোবাইল থেকে বিকাশের সাহায্যে অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কিনতে পারবেন।

উল্লেখ্য, অনলাইনে Bangladesh Railway E Ticket বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকিট বিক্রয়ের জন্য Shohoz-Synesis-Vincen Joint Venture এর সাথে চুক্তি করেছে আগামী ৫ বছরের জন্য। তাই এখন থেকে সহজ.কম ট্রেনের টিকিট বিক্রয়ের কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

ঈদে ট্রেনের টিকিট নিয়ে সর্বশেষ আপডেট

ঈদে ট্রেনের টিকিট বিক্রয় শুরু হয়েছে এবং এবার কিছু নতুন নিয়ম এসেছে। ট্রেনের টিকিট কাউন্টার থেকে টিকিট ক্রয় করতে আপনার প্রয়োজন হবে জাতীয় পরিচয় পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন। এমনকি ভ্রমণের সময় আপনাকে এর কপি আপনার সঙ্গে রাখতে হবে।

এছাড়া একটি জাতীয় পরিচয়তপত্র/ জন্ম নিবন্ধনের বিপরীতে সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট ক্রয় করতে পারবেন। তাই, কারো এর বেশি টিকিটের প্রয়োজন হলে, ২টি জাতীয় পরিচয়পত্র/ জন্ম নিবন্ধন নিয়ে যাবেন। অর্থাৎ ২ জনের নামে টিকেট বুকিং করতে হবে।

অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার সময়

বাংলাদেশে রেলওয়েকে সবচেয়ে নিরাপদ ও সাশ্রয়ী পরিবহন ধরা হয়। তাই দূরপাল্লার যেকোনো ভ্রমণে সবাই ট্রেন ব্যবহারেই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে।

কিন্তু ট্রেনের টিকিট পাওয়া অত্যন্ত দুঃসাধ্য। অনেক লম্বা লাইনে দাড়িয়েও শেষ পর্যন্ত আপনি হয়তো টিকিট পাবেন না। তাই, আপনি ঘরে বসেই খুব সহজে আপনার মোবাইল থেকেই ট্রেনের টিকেট বুকিং করতে পারেন।

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার সময় হলো রাত দিন ২৪ ঘণ্টা। আপনি আজ থেকে আগামী ৪ দিন পর্যন্ত অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ক্রয় করতে পারবেন।

আসুন দেখে নিই কিভাবে অনলাইনে E Train Ticket ট্রেনের টিকিট বুকিং করবেন।

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য eticket.railway.gov.bd ওয়েবসাইটে নাম, ইমেইল ও মোবাইল নম্বর দিয়ে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করুন। এরপর প্রোফাইলের তথ্য আপডেট করুন। আপনার স্টেশন ও গন্তব্য অনুযায়ী নির্দিষ্ট তারিখের ট্রেন সার্চ করুন। সবশেষে আসন বাছাই করে অনলাইনে পেমেন্ট করে টিকিট বুকিং কনফার্ম করুন।

Time needed: 15 minutes.

ওয়েবসাইট থেকে অনলাইনে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট কাটার প্রক্রিয়াটি বিস্তারিত দেখুন-

  1. একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করুন

    আপনার মোবাইল ফোন বা কম্পিউটার থেকে গুগল ক্রোম (Chrome) ব্রাউজার থেকে ভিজিট করুন এই ওয়েবসাইটে- Bangladesh Railway E-Ticketing Service
    প্রথমেই আপনাকে বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইটে আপনার মোবাইল নম্বর ও ইমেইল দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন বা সাইন আপ করতে হবে। রেজিষ্ট্রেশনের জন্য উপরের ডান পাশ থেকে Register বাটনে ক্লিক করুন। নিচের মত একটি ফর্ম আসবে। এখানে আপনি ইংরেজিতে আপনার নাম, ইমেইল, ফোন নম্বর, ও ৮ অংকের একটি পাসওয়ার্ড দিবেন।
    NID অথবা Birth Registration Number যেটি আপনি দিতে চান, সেটি Identification Type অপশনে Dropdown অপশন থেকে বাছাই করুন। আপনার National ID Number বা Birth Registration নাম্বার লিখুন। আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র এখনো হাতে না পেলে, অনলাইন থেকে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাউনলোড করতে পারেন।
    এরপর আপনার পোস্টকোড এবং নিচে ঠিকানা লিখুন। সব তথ্য অবশ্যই ইংরেজিতে লিখবেন। এখন ওয়েবসাইটের বাংলা ভার্সন প্রস্তুত হয়নি।
    অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কেনার নিয়ম

  2. মোবাইল ভেরিফাই করুন

    এরপর আপনার মোবাইলে 6 ডিজিটে একটি Verification Code পাঠানো হবে এবং Code টি দিয়ে Verify করতে চাওয়া হবে। আপনার মোবাইলে আসা Code টি 45 সেকেন্ডের মধ্যে সঠিকভাবে লিখে Continue বাটনে ক্লিক করুন। আপনার একাউন্টটি প্রাথমিক ভাবে চালু হয়ে যাবে।অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

  3. একাউন্টে লগ ইন করুন

    ভেরিফিকেশন শেষে, স্বয়ংক্রীয়ভাবে আপনার প্রোফাইলে লগ ইন হয়ে যাবে। লগইন না হলে বা ভবিষ্যতে পুনরায় টিকিট ক্রয় করতে এই ওয়েবসাইটে ফিরে আসবেন এবং উপরের ডান পাশ থেকে Login মেন্যুতে ক্লিক করুন। রেজিষ্ট্রেশনের সময় আপনি যে Mobile No এবং Password দিয়েছিলেন, এখানে তা দিয়ে লগইন করুন।বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকিট

  4. ট্রেন সার্চ করুন

    প্রোফাইল আপডেট করা শেষে, ওয়েবসাইটের Home পেইজে ফিরে যান। আপনি কোন স্টেশন থেকে রওনা হবেন আর কোন স্টেশনে নামবেন সেই অনুসারে ট্রেন সার্চ করুন।
    From – আপনি যে স্টেশন থেকে ট্রেনে উঠবেন বাছাই করুন এবং TO- তে আপনি যে স্টেশনে নামবেন তা বাছাই করুন।
    Date of Journey থেকে আপনার ভ্রমণের তারিখ বাছাই করুন।
    Choose Class – এখানে উপরের মত অপশনগুলো পূরণ করে হলুদ রংয়ের Find বাটনে ক্লিক করুন। এরপর আপনার বাছাই করা তারিখের সকল ট্রেনগুলো দেখানো হবে।
    এখান থেকে ট্রেন ছাড়ার সময় অনুসারে আপনার পছন্দ মত ট্রেন থেকে টিকেট কাটার জন্য সিলেক্ট করুন।ট্রেনের অগ্রিম টিকিট

  5. ট্রেন ও সিট বাছাই করুন

    আপনার যাত্রার সময় ও আসনের ধরণ অনুসারে পছন্দমত ট্রেন ও সিট বাছাই করুন। এজন্য আপনার পছন্দের ট্রেনের আসন খালি থাকা সাপেক্ষে (Seats Available থাকলে) View Seats বাটনে ক্লিক করে সিট বুকিং করুন। শিশুদের টিকেটের মূল্য পরের ধাপে সমন্বয় করা হবে। এরপর CONTINUE PURCHASE বাটনে ক্লিক করে পরের ধাপে যান।ট্রেনের টিকিট ক্রয়

  6. যাত্রীর তথ্য দিন

    এ ধাপে যতগুলো সিট বুক করেছেন, তার যাত্রীদের নাম এবং শিশু বা বয়স্ক কিনা তা সিলেক্ট করতে হবে। ৩ থেকে ১২ বছর বয়সী শিশু থাকলে Passanger Type Child সিলেক্ট করুন। Child সিলেক্ট করলে তার ভাড়া স্বয়ংক্রীয়ভাবে সমন্বয় হবে বা কমে যাবে।অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয়

  7. টিকিটের মূল্য পরিশোধ

    এখানে টিকিটের মোট ভাড়ার পরিমাণ, ভ্যাট, ব্যাংক চার্জ ও মোট খরচের পরিমাণ দেখানো হবে। টিকেটের মূল্য পরিশোধ করার জন্য Mobile Banking (bKash) অথবা Debit/Credit Card অপশন বাছাই করুন। এরপর Confirm Purchase বাটনে ক্লিক করে পেমেন্ট সম্পন্ন করুন।অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয়

  8. ট্রেনের টিকিট ডাউনলোড ও প্রিন্ট করুন

    সফলভাবে পেমেন্ট করার সাথে সাথেই Bangladesh Railway E Train Ticket System থেকে ই টিকিট ইস্যু করা হবে। টিকিটটি স্বয়ংক্রীয়ভাবে আপনার ব্রাউজার থেকে ডাউনলোড করা হয়ে যাবে। আপনার প্রোফাইলের Purchase History থেকেও টিকিট ডাউনলোড করে নিতে পারেন। তাছাড়া, টিকিটের একটি কপি আপনার ইমেইলেও পাঠানো হবে। ইমেইলের Inbox Folder এ না পাওয়া গেলে SPAM Folder চেক করতে পারেন। টিকিটটি A4 সাইজের কাগজে প্রিন্ট করে নিন।ট্রেনের টিকিট

মোবাইলে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

মোবাইলে ট্রেনের টিকেট বুকিং করার জন্য আপনার মোবাইলের Google Chrome ওপেন করুন এবং eticket.railway.gov.bd সাইটে ভিজিট করে উপরের দেখানো পদ্ধতি একইভাবে টিকেট ক্রয় করুন।

বিকাশে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

সরাসরি বিকাশ অ্যাপ থেকে টিকিট কাটার নিয়ম এখনো আপডেট হয়নি। তবে, বাংলাদেশ রেলওয়ের ই-টিকিটিং সাইট থেকে বিকাশে পেমেন্ট করে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করতে পারবেন। আশা করি খুব শিগ্রই বিকাশ থেকে টিকিট বুকিং করতে পারবেন। তবে এটি সরাসরি ওয়েবসাইট থেকে কাটার মত একই হবে। ওয়েবসাইট থেকে ট্রেনের টিকিট কাটার পদ্ধতিটি দেখুন- ওয়েবসাইট থেকে ট্রেনের টিকিট কাটার নিয়ম

কিভাবে ট্রেনের টিকিট চেক করবেন

নিজের প্রোফাইল থেকে টিকিট কিনলে সেটা অবশ্য চেক করার আর দরকার হবে না। তবে অন্য দ্বারা অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ক্রয় করালে, ভ্রমণের আগে অবশ্যই চেক করে নিবেন। ট্রেনের টিকিট চেক করার জন্য ই টিকিটিং সাইটে রেজিস্ট্রেশনের প্রয়োজন নেই। সরাসরি ভিজিট করেই চেক করতে পারবেন।

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট চেক করার জন্য ভিজিট করুন- eticket.railway.gov.bd । এরপর, উপরের ডান পাশ থেকে Verify Ticket মেন্যুতে ক্লিক করুন। ট্রেনের টিকেটে ব্যবহার করা মোবাইল নম্বর এবং টিকেটে উপরের অংশে লেখা, PNR Number টি লিখুন। এরপর Verify Ticket বাটনে ক্লিক করার পর টিকিট সঠিক থাকলে, Ticket Verified দেখাবে এবং ভ্রমণের রুট দেখাবে।

ট্রেনের টিকিট চেক
ট্রেনের টিকেট চেক করার নিয়ম

ট্রেনের টিকিট মূল্য

ঢাকা টু চট্টগ্রাম ট্রেনের টিকিট
ঢাকা টু রাজশাহী ট্রেনের টিকিট
ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের টিকিট

ট্রেনের টিকিট ফেরত দেওয়ার নিয়ম

অনেকেই ট্রেনের টিকিট 4/5 দিন আগে কিনে রাখেন। কোন অনাকাঙ্খিত সমস্যার কারণে ভ্রমণ বাতিল হতেই পারে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে ট্রেনের টিকিট ফেরত দেয়ার জন্য অবশ্যই আপনার স্টেশনের কাউন্টারে যেতে হবে। টিকিট ফেরত দেওয়ার ক্ষেত্রে নিম্মোক্ত চার্জ ধার্য করা হবে।

  • যাত্রা শুরুর 48 ঘন্টা আগে টিকিট ফেরত দেওয়ার ক্ষেত্রে, এসি ক্লাসের জন্য 40 টাকা, প্রথম শ্রেণীর জন্য 30 টাকা এবং অন্য শ্রেণীর জন্য 25 টাকা পরিষেবা চার্জ সহ কাটা হবে।
  • 48 ঘন্টার কম এবং 24 ঘন্টার বেশি হলে, ভাড়ার 25% কাটা হবে।
  • 24 ঘন্টার কম এবং 12 ঘন্টার বেশি হলে, ভাড়ার 50% কাটা হবে।
  • 12 ঘন্টার কম এবং 06 ঘন্টার বেশি ভাড়ার 75% কাটা হবে।
  • 06 ঘন্টার কম সময়ের জন্য কোন ফেরত নেই।
  • অনলাইন ক্রয়ের জন্য সার্ভিস চার্জ অ-ফেরতযোগ্য।

ট্রেনের টিকিট কাটার অ্যাপস

বর্তমানে বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনের টিকিট কাটার অ্যাপস চালু নেই। তবে, অ্যাপ ছাড়াই মোবাইল থেকে Google Chrome ব্রাউজার থেকে eticket.railway.gov.bd ভিজিট করে ট্রেনের টিকিট বুকিং করতে পারবেন।

উল্লেখ্য, পূর্বে বাংলাদেশ রেলওয়ের টিকিট বিক্রয় কার্যক্রম Computer Network System, Bangladesh এর কাছে ছিল। তাদের ডেভেলপ করা ট্রেনের টিকিট কাটার অ্যাপটি ব্যবহারকারীদের জন্য সুবিধাজনক ছিল।

কিন্তু বর্তমানে ২০২২ এর মার্চ থেকে টিকিট বিক্রয়ের কার্যক্রম নতুনভাবে Shohoz-Synesis-Vincen Joint Venture এর কাছে অর্পন করা হয়। তাই পূর্বের অ্যাপটি আর ব্যবহৃত হচ্ছেনা।

তবে, শীঘ্রই বাংলাদেশ রেলওয়ের ট্রেনের টিকিট কাটার অ্যাপস চালু হওয়ার আশা করি।

ট্রেনের টিকিট কেনার শর্তাবলী

বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকিট ক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য শর্তাবলী (তথ্যসূত্র- বাংলাদেশ রেলওয়ে ই টিকেটিং সার্ভিস)

  • (BD Train Ticket Online) রেলের টিকিট ইস্যু করার জন্য, বাংলাদেশ রেলওয়ে পোর্টাল কার্ড/ওয়ালেট চার্জ তথ্যের জন্য বিভিন্ন পেমেন্ট গেটওয়ের উপর নির্ভর করে। বাংলাদেশ রেলওয়ে যাত্রীদের কোনো সংবেদনশীল তথ্য যেমন কার্ড/ওয়ালেটের বিবরণ, ওটিপি, পিন কোড সংরক্ষণ করে না।
  • যদি কোনো কার্ড/ওয়ালেট চার্জ করা হয় এবং/অথবা পেমেন্ট গেটওয়ে যথাসময়ে তথ্য ফেরত দিতে ব্যর্থ হয়, তাহলে এটা সম্ভব যে যাত্রীর কার্ড/ওয়ালেটে কাঙ্খিত টিকিটের জন্য ইস্যু করা ছাড়াই চার্জ করা হবে। এই ধরনের ক্ষেত্রে, পেমেন্ট গেটওয়ে স্বয়ংক্রিয়ভাবে 8 (আট) কার্যদিবসের মধ্যে গ্রাহক-যাত্রীর দ্বারা ক্রয়কৃত অর্থ তাদের নিজ নিজ কার্ড/ওয়ালেটে ফেরত দেবে।
  • যাইহোক, যদি এই ধরনের একজন ক্লায়েন্ট-যাত্রী 8 (আট) কার্যদিবসের মধ্যে ফেরত না পান, তাহলে ক্লায়েন্ট-যাত্রীকে [email protected] এ সমস্যাটির বিশদ বিবরণ সহ একটি অভিযোগ ইমেল পাঠাতে অনুরোধ করা হচ্ছে । এই ধরনের একজন ক্লায়েন্ট-যাত্রীকে উত্তর 7 কার্যদিবসের মধ্যে পাঠানো হবে।
  • অর্থপ্রদান পরিষেবা প্রদানকারীদের উপর নির্ভরতার কারণে, সমস্যাটি সমাধান করতে কয়েক দিন সময় লাগতে পারে।
  • অসফল কেনাকাটা এবং কার্ড চার্জিং সংক্রান্ত সমস্যাগুলির ফেরতের জন্য, ক্লায়েন্ট-যাত্রীকে অবশ্যই পেমেন্ট পরিষেবা প্রদানকারীর সাথে যোগাযোগ করতে হবে যার মাধ্যমে তিনি লেনদেন করেছেন।
  • সফলভাবে কেনা টিকিট ফেরতের জন্য, ক্লায়েন্ট-যাত্রীকে অবশ্যই তাদের নিজ নিজ স্টেশনে যেতে হবে (অর্থাৎ, প্রস্থান স্টেশন যেখান থেকে ক্লায়েন্ট-যাত্রী ভ্রমণ করবেন) এবং ফেরত কাউন্টারের সাথে যোগাযোগ করুন।
  • বাংলাদেশ রেলওয়ে বা Shohoz-Synesis-Vincen JV টিকিট প্রদান না করা বা পেমেন্ট প্রক্রিয়াকরণে ত্রুটি বা অন্য কোনো কারণে যা বাংলাদেশ রেলওয়ে বা Shohoz-Synesis-Vincen JV-এর নিয়ন্ত্রণের বাইরের কারণে টিকিট না দেওয়া বা ফেরত বিলম্বের জন্য দায়ী থাকবে না।
  • বাংলাদেশ রেলওয়ে কোনো গ্যারান্টি/ওয়ারেন্টি দেয় না যে অনেক পরিষেবা প্রদানকারীর উপর নির্ভরতার কারণে উপরোক্ত পরিষেবাগুলির যেকোনো একটি নিরবচ্ছিন্ন, সময়মত বা ত্রুটিমুক্ত হবে।
  • এই টিকিট অ-হস্তান্তরযোগ্য এবং অ-বরাদ্দযোগ্য।
  • 3 থেকে 12 বছর বয়সী শিশুদের জন্য ছোট টিকিট কেনা বাধ্যতামূলক৷
  • যেসব যাত্রী লাগেজের ওজন সীমার মধ্যে ভ্রমণ করেন তাদের জন্য কোনো অতিরিক্ত ফি নেই: AC- 56 KG, প্রথম শ্রেণি- 37.5 KG, শোভন চেয়ার/ শোভন- 28 কেজি, শুলোভ- 23 কেজি।
  • অনিবার্য পরিস্থিতির কারণে যাত্রার সময় কোচ/সিট নম্বর পরিবর্তন হতে পারে।
  • বাংলাদেশ রেলওয়ে একটি জাতীয় সম্পদ। টিকিট না কিনে বাংলাদেশ রেলওয়েতে ভ্রমণ করবেন না। ভ্রমণের সময় ট্রেনের টিকিট কিনুন এবং অন্যদেরও তা করতে উৎসাহিত করুন।
  • বৈধ টিকিট ছাড়া যেকোন ভ্রমণ করলে বিচারের মুখোমুখি হতে পারে। বাংলাদেশ রেলওয়েতে ভ্রমণের জন্য যাত্রীর অবশ্যই একটি বৈধ টিকিট থাকতে হবে। কোনো মেয়াদোত্তীর্ণ টিকিট বা ভবিষ্যতে ভ্রমণের তারিখ থাকা টিকিট বৈধ হবে না।
  • ভ্রমণের তারিখ এবং সময়, গন্তব্য, আসন নম্বর এবং কোচের বিবরণ সম্পর্কিত টিকিটের সঠিকতা পরীক্ষা করা গ্রাহক-যাত্রীর দায়িত্ব। পছন্দসই গন্তব্যের প্রাপ্যতা, আসন সংখ্যা ইত্যাদির উপর নির্ভর করে ভুলভাবে কেনা টিকিটগুলি প্রতিস্থাপন করা যেতে পারে।
  • এই শর্তাবলীতে বাংলাদেশ রেলওয়ে বা Shohoz-Synesis-Vincen JV দ্বারা স্বীকার করা যাই হোক না কেন, বাংলাদেশ রেলওয়ে বা Shohoz-Synesis-Vincen JV কেউই রেল টিকিট বা ভ্রমণের কারণে উদ্ভূত প্রকৃতির কোনো দায় স্বীকার করে না।

ট্রেন টিকিট সম্পর্কে বিভিন্ন প্রশ্ন ও উত্তর

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কেনার জন্য ব্যবহৃত মাধ্যম কোনটি?

বর্তমানে অনলাইনে টিকিট কেনার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে eticket.railway.gov.bd ওয়েবসাইট। ওয়েবসাইট থেকেই পূর্বের নিয়ম অনুসারে টিকেট ক্রয় করতে পারবেন।

ট্রেনের টিকিট কতদিন আগে কাটা যায়?

অনলাইনে ৪ দিন আগে থেকে ট্রেনের টিকেট কাটা যায়। অর্থাৎ ট্রেনের অগ্রিম টিকিট ৪ দিন আগে পাওয়া যায়। অনলাইনে আজ এবং আগামী ৪ দিন সহ মোট ৫ দিনের টিকিট কাটা যাবে।

অনলাইনে কিভাবে ট্রেনের টিকেট কাটবো?

অনলাইনে টিকেট কাটার জন্য ই টিকেট ওয়েবসাইটে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তারপর প্রোফাইলের তথ্য আপডেট করার পর, পছন্দের গন্তব্য অনুযায়ী ট্রেন সার্চ করে পেমেন্ট সম্পন্ন করে টিকেট কাটতে পারবেন।

অ্যাকাউন্ট রেজিস্ট্রেশন ছাড়া সরাসরি কি টিকিট কাটতে পারবো?

না। অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কেনার জন্য আপনার মোবাইল, ইমেইল ও NID নম্বর দিয়ে ই টিকিট সিস্টেমে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে হবে এবং মোবাইল নম্বর ভেরিফিকেশন করতে হবে।

ট্রেনের টিকিট কাউন্টার থেকে কেনা টিকেট কিভাবে অনলাইনে Verify করতে হয়?

ট্রেনের টিকিট কাউন্টার থেকে কেনা অফলাইন টিকেট ভেরিফাই করার জন্য, প্রথমে Bangladesh Railway E Ticket ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন ও মোবাইল ভেরিফিকেশন করুন। তারপর Verify Ticket মেন্যুতে গিয়ে মোবাইল নম্বর ও টিকেট নম্বর দিয়ে Verification করতে পারবেন।

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ফেরত দেওয়ার নিয়ম কি?

অনলাইনে ট্রেনের টিকিট ফেরত দেওয়ার কোন নিয়ম নেই। টিকিট ফেরত দেওয়ার জন্য আপনাকে স্টেশন কাউন্টারে যেতে হবে। টিকিট ফেরতের ক্ষেত্রে আপনি সম্পূর্ণ টাকা ফেরত পাবেন না, কিছু চার্জ কেটে নেয়া হবে। ট্রেনের টিকিট ফেরত দেওয়ার চার্জ

ট্রেনের টিকিট সম্পর্কে আরো তথ্যের লিংক

সকল আপডেট তথ্যের জন্য Eservicesbd Facebook Page

Similar Posts

16 Comments

  1. ওয়েবসাইট থেকে টিকিট কাটা যাচ্ছেনা। যেই স্টেশনই সিলেক্ট করি Please enter correct station name (or choose from suggested stations)

    আসছে। সঠিক হলেও আবার ভুল হলেও। 

  2. শুধু হয়রানি টিকেট কাটা জায়না সি এন এ ভালো ছিল সহজ ডটকম মোবাইল হ্যং করে.রেজিষ্ট্রেশন করে লগইন করে শুধু দেখায় সঠিক ইস্ট শনের নাম দিন বাজে সহজ ডট কম না-কি কঠিন ডটকম?

  3. সকাল কয়টা থেকে ট্রেনের অগ্রিম টিকেট ছাড়া হয় অনলাইনে? যেমন ৫ দিন পরের টিকেট ৫ দিন আগে কোন সময় থেকে এভেইলেবল হবে??

  4. আমি প্রবাসে থাকি। আমার ট্রেনের টিকেট যদি আমার কোন নিকটাত্মীয় অনলাইনের মাধ্যমে কেটে দেয় তাহলে সেই টিকেট ব্যবহার করে আমি ট্রাভেল করতে পারব কিনা দয়া করে জানাবেন।

  5. আমি আজকে সকাল 8:37 মিনিটে ঢাকা টু জয়পুরহাট র নীলসাগর ট্রেন র টিকিট কিনি 1640 টাকা দিয়ে…
    টিকিট টা Purchase history তে আসছে….But টিকিট Download hocca na…
    এখন কি করনীয় আমার….
    plz help

  6. আমি ই টকেট রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়ে জিমেইল ভুল হয়েছে যার কারণে যতবার টিকিট কাটতেছি ওই জিমেইলের টিকেট চলে যাচ্ছে এটা সমাধান কি,জিমেইল চেঞ্জ করবো কিভাবে..??

Comments are closed.