ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে জন্ম নিবন্ধন বের করার নিয়ম

জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধনের সময় আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর দেয়া হলে তা আপনার প্রোফাইলে থাকবে। দেখুন- কিভাবে ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে জন্ম নিবন্ধন নম্বর জানবেন।

আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ হারিয়ে ফেলেছেন এবং আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বরটিও জানা নেই? কিভাবে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি দিয়ে জন্ম নিবন্ধন বের করবেন তা জানতে সম্পূর্ন পোস্টটি মনযোগ দিয়ে পড়ুন।

জাতীয় পরিচয়পত্র বা ভোটার আইডি কার্ড নিবন্ধনের সময় আমাদের জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি আবশ্যিকভাবে ব্যবহার করা হয়। তাই, ভোটার নিবন্ধন ফরমে যদি জন্ম নিবন্ধন নম্বর ব্যবহার করে থাকেন, জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে আপনার একাউন্ট থেকে জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি জানতে পারবেন।

ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে জন্ম নিবন্ধন বের করা


কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে জন্ম নিবন্ধন নম্বর বের করবেন তা নিচে বিস্তারিত দেখানো হলো।

ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে জন্ম নিবন্ধন বের করার নিয়ম

জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে আপনার প্রোফাইল থেকে জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি জেনে নিতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন নম্বর বের করার জন্য আপনাকে জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে আপনার ভোটার আইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে হবে।

এজন্য আপনার যা যা লাগবে।

  • এনআইডি/ স্মার্ট কার্ড নম্বর
  • জন্ম তারিখ ও ঠিকানা
  • মোবাইল ভেরিফিকেশনের জন্য আপনার সচল মোবাইল নম্বর
  • ইন্টারনেট ব্রাউজ করার জন্য একটি মোবাইল বা কম্পিউটার (ক্রোম ব্রাউজার সহ)
  • ফেইস ভেরিফিকেশনের জন্য একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন

নিচের লিংক থেকে দেখুন কিভাবে, এনআইডি ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন, ফেইস ভেরিফিকেশন ও লগ ইন করবেন।

কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করবেন

ফেইস ভেরিফিকেশনের পর আপনার একাউন্টে স্বয়ংক্রীয়ভাবে লগ ইন হয়ে যাবেন। আর যদি আগে থেকেই আপনার একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করা থাকে, এনআইডি নম্বর ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করুন।

এবার ডান পাশ থেকে প্রোফাইল অপশনে ক্লিক করে, আপনার প্রোফাইলের সমস্ত তথ্য দেখতে পাবেন। এখান থেকে আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বরটি জানতে পারবেন।

জন্ম নিবন্ধন অনলাইন কপি ডাউনলোড

এবার অনলাইন থেকে আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে জন্ম নিবন্ধন অনলাইন ভেরিফিকেশন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন।

অনলাইন ভেরিফিকেশন কপিতে আপনার প্রয়োজনীয় সকল তথ্যই পাওয়া যাবে। তাই এটি যে কোন কাজে ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া আপনার সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ বা পৌরসভা কার্যালয়ে গিয়ে পুনরায় জন্ম নিবন্ধন সনদটির নকল কপি প্রিন্ট করিয়ে নিতে পারবেন। এজন্য সরকারি ফি প্রযোজ্য হবে।

আশা করি এই টিপটি আপনার উপকারে আসবে। যদি উপকারে আসে, দয়া করে পোস্টটি ফেইসবুকে শেয়ার করে অন্যদের জানিয়ে দিন।

জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত সকল তথ্য একসাথে পেতে দেখুন- জন্ম নিবন্ধন । তাছাড়া, জন্ম নিবন্ধন নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের লিংক নিচে দেয়া হল।

জন্ম নিবন্ধন সংক্রান্ত আরো তথ্য

Similar Posts

18 Comments

      1. আপনি জন্ম নিবন্ধন করেন নি? না করলে অনলাইনে আবেদন করুন। জন্ম ২০০০ সালের পর হলে আগে বাবা মার জন্ম নিবন্ধন ডিজিটাল করতে হবে।

  1. ব্লগে লেখা অনুসরণ করে, জাতীয় পরিচয়পত্রের ওয়েবসাইটে লগইন করে, আপনার জন্ম নিবন্ধন নম্বর আগে জেনে নিতে হবে। তারপর জন্ম নিবন্ধন সনদ পুনমুদ্রণের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

  2. আপনার পরিবারের কারো জন্ম নিবন্ধন নম্বর আমাদের ফেইসবুক পেইজের এডমিনকে দিতে পারেন। চেষ্টা করে দেখা যায় নিবন্ধন নম্বরটি খুজে পাওয়া যায় কিনা। তা না হলে, আপনি যে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভায় জন্ম নিবন্ধন করেছিলেন সেখানে যোগাযোগ করতে হবে।

  3. হারানো এনআইডি কার্ড পূনরায় পাওয়ার জন্য, প্রথমে আপনার নিকটস্ত থানায় জিডি করবেন। এর পর অনলাইনে জিডি কপি দিয়ে রিইস্যুর আবেদন করবেন। ১৫-২০ দিনের মধ্যে অনুমোদন হয়ে যায়। তখন অনলাইন থেকেই ডাউনলোড করতে পারবেন।

    1. আমার পাসপোর্ট /ড্রাইভিং লাইসেন্স এর মাঝে আমার জন্ম তারিখ ২০/০২/১৯৮৪
      আর আমার নিবন্ধনে জন্ম তারিখ 1
      ০১/০১/১০৮৪
      সহজ পদ্ধতিতে সংশোধন করার উপায় কি জানাবেন প্লিজ???

      1. জন্ম নিবন্ধনে জন্ম তারিখ সংশোধন করার জন্য অনলাইনে আবেদন করুন। এটিই একমাত্র পদ্ধতি আর কোন পদ্ধতি নাই।

  4. আপনার পরিবারের অন্য কেউ একইসাথে জন্ম নিবন্ধন করেছেন এমন কারো জন্ম নিবন্ধন নম্বর নিয়ে আমাদের ফেইসবুক পেইজে যোগাযোগ করুন। হেল্প করার চেষ্টা করব।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।