যেসব ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন জমা দেয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে

যদিও আগে বিভিন্ন ক্ষেত্রে টিন সার্টিফিকেট ও রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক ছিল, এবার তার পরিধি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। জানুন কোন ক্ষেত্রে আপনাকে আয়কর রিটার্ণ জমা দেয়ার প্রমাণ দেখাতে হবে।

যেসব ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হবে

অনেকেই আয়কর নিবন্ধন করলেই, নির্ধারিত সময়ে আয়কর রিটার্ণ জমা দেন না। অনেকেই জানেন না যে, টিন সার্টিফিকেট থাকলে, তাকে শুন্য রিটার্ণ হলেও জমা দিতে হবে।

এবারের বাজেটে, আয়কর রিটার্ন জমা দেয়ার ব্যাপারে জোর দেয়া হয়েছে, বাড়ানো হয়েছে রিটার্ন জমা দেয়ার বাধ্যবাধকতার পরিধি। আসুন জানি কোন কোন ক্ষেত্রে আপনাকে আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হবে।

আয়কর নিবন্ধন্ধিত বা টিন রেজিস্ট্রেশন করেছেন এমন ব্যক্তিদের রিটার্ন দাখিলে বাধ্য করার জন্য, অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০৩৩-২৩ অর্থবছরের জন্য এই বাজেট প্রস্তাব করেন।

করের আওতা সম্প্রসারণে আয়কর রিটার্ন দাখিলের সংখ্যা বাড়াতে ছয়টি ‘আইনি বিধান’ আরোপের প্রস্তাব করেছেন, যার একটি হল- “কতিপয় ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন দাখিলের প্রমাণ উপস্থাপন বাধ্যতামূলক করা।”

আয়কর রিটার্ণ দাখিলের প্রমাণ হিসেবে নিম্মোক্ত ৩টি ডকুমেন্টের যে কোন একটি জমা দিলেই চলবে।

  1. আয়কর রিটার্ন জমা দেয়ার রসিদ (এনবিআর কর্তৃক প্রাপ্তিস্বীকার পত্র)। অনলাইনে আয়কর রিটার্ন জমা দিলে স্বয়ংক্রীয়ভাবে পাবেন।
  2. করদাতার নাম, টিন, কর দেয়ার বছর উল্লেখ করে স্বয়ংক্রীয় পদ্ধতিতে এনবিআরের সনদ।
  3. করদাতার নাম, টিন, কর দেয়ার বছর উল্লেখ করে কর উপ-কমিশনারের সনদ।

যেসব ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন জমা দেয়ার প্রমাণ দিতে হবে

আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে নিম্মোক্ত ক্ষেত্রে,

  1. ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে পাঁচ লাখ টাকার বেশি ঋণ নিতে
  2. কোনো কোম্পানির পরিচালক বা উদ্যোক্তা পরিচালক হতে
  3. আমদানি-রপ্তানি ব্যবসার সনদ থাকলে বা নতুন সনদ নিতে
  4. সিটি বা পৌর এলাকায় ট্রেড লাইসেন্স থাকলে বা নতুন সনদ নিতে
  5. ক্রেডিট কার্ড থাকলে বা নতুন কার্ড নিতে চাইলে
  6. ডাক্তার, আইনজীবী, চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট, প্রকৌশলী, স্থপতি, সার্ভেয়ারের মত পেশাজীবীদের সংগঠনের সদস্য হয়ে থাকলে বা সদস্য হতে চাইলে
  7. বিবাহ নিবন্ধকের লাইসেন্স পেতে হলে
  8. কোনো বাণিজ্য সংগঠনের সদস্য হলে বা সদস্য হতে চাইলে
  9. ড্রাগ লাইসেন্স থাকলে বা করাতে চাইলে
  10. দেশের যে কোনো জায়গায় বাণিজ্যিক বা শিল্প কারখানায় গ্যাস লাইন এবং সিটি করপোরেশন এলাকায় বাসা বাড়ির গ্যাস সংযোগ নিতে এবং আগের সংযোগ বজায় রাখতে
  11. নৌযানের সার্ভে সার্টিফিকেটের জন্য
  12. ইটভাটার অনুমোদন নিতে
  13. ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে বা জাতীয় কারিকুলামের ইংরেজি ভার্সনের স্কুলে সন্তান বা পোষ্য ভর্তি করাতে
  14. সিটি করপোরেশন এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে
  15. অস্ত্রের লাইসেন্স
  16. আমদানির এলসি খুলতে
  17. ডাকবিভাগে ৫ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়ী হিসাব খুলতে
  18. যে কোনো ধরনের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের স্থিতি ১০ লাখ টাকার বেশি হলে
  19. ৫ লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র কিনতে
  20. উপজেলা, পৌরসভা, জেলা পরিষদ, সিটি করপোরেশন এবং সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হতে
  21. জমি বা বাসা ভাড়া দিলে, পরিবহন সেবার ব্যবসা করলে
  22. এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা মাসে ১৬ হাজার টাকার বেশি পেলে
  23. চার চাকার যে কোনা মোটরগাড়ি নিবন্ধন, ফিটনেস নবায়ন , মালিকানা হস্তান্তর করতে
  24. অনলাইনে যে কোনো ধরনের পণ্য বা সেবা বিক্রি করলে
  25. সোসাইটি রেজিস্ট্রেশন অ্যাক্টের অধীনে গঠিত কোনো ক্লাবের সদস্য হলে
  26. পণ্য সরবরাহের ঠিকাদারি কাজে টেন্ডার জমা দিতে
  27. আমদানি-রপ্তানির বিল অব এন্ট্রি জমা দিতে
  28. ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী বা খুলনায় ভবন নির্মাণের নকশা অনুমোদনের জন্য
  29. এছাড়া, স্বীকৃত প্রভিডেন্ট ফান্ড, অনুমোদিত গ্র্যাচুইটি ফান্ড, পেনশন ফান্ড, অনুমোদিত সুপারএন্যুয়েশন ফান্ড এবং শ্রমিক অংশগ্রহণ তহবিল ব্যতীত অন্যান্য ফান্ডের রিটার্ন দাখিল করতে হবে।

আর কর না দিলে গ্যাস, বিদ্যুৎ ও পানির মত সেবা বন্ধের প্রস্তাব রেখেছেন আ হ ম মুস্তফা কামাল।

শেষকথা

আমাদের অনেকেই আছেন যারা আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়া কে একটি ঝামেলা মনে করেন। এটা একসময় ঝামেলাপূর্ণ ছিল। কিন্তু গত বছর থেকে অনলাইনে জমা দেয়ার সুযোগ থাকায় এটি অত্যন্ত সহজ হয়েছে।

যাদের আয়কর দেয়ার মত আয় নেই কিন্তু টিন রেজিস্ট্রেশন করা আছে, তাদের ও আয়কর রিটার্ণ জমা দিতে হবে। এক্ষেত্রে অবশ্য আপনাকে শুন্য রিটার্ণ দাখিল করতে হবে। দেখুন কিভাবে অনলাইনে শুন্য আয়কর রিটার্ণ জমা দিতে হয়

তাছাড়া আয়কর সংক্রান্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের জন্য দেখুন- আয়কর

আয়কর সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্যের লিংক

সকল আপডেট তথ্যের জন্য Facebook Page

Similar Posts

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।