আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ করার নিয়ম

জেনে নিন আমেরিকা থেকে বাংলাদেশী পাসপোর্ট রিনিউ করার নিয়ম, কিভাবে অনলাইনে আবেদন করবেন, পাসপোর্ট ফি ও কাগজপত্র জমা দিবেন।

আপনি যদি বর্তমানে আমেরিকায় থাকেন তবে আপনি বাংলাদেশ এ্যাম্বাসি ওয়াশিংটন ডিসি, নিউ ইয়র্ক এবং লস অ্যাঞ্জেলেস কনস্যুলেট অফিস থেকে ই-পাসপোর্ট নবায়নের জন্য আবেদন করতে পারবেন। আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ করার নিয়ম ও প্রক্রিয়া বিস্তারিত তথ্য জানতে পারবেন এই পোস্টে।

এক নজরে সম্পূর্ণ লেখা

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ করার নিয়ম

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ করার জন্য www.epassport.gov.bd এই সাইটে গিয়ে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। ই পাসপোর্টের জন্য অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন দিয়ে আবেদন করতে হবে। অনলাইনে আবেদনের সময় ID Documents অপশন থেকে আপনার পূর্ববর্তী MRP পাসপোর্ট বাছাই করুন ও পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে আবেদনটি সম্পন্ন করুন।

আপনি সহজেই অনলাইনে ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারেন। এখানে আমি ছবি সহ প্রত্যেকটি পদক্ষেপ বর্ণনা করার চেষ্টা করেছি। সাবধানে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করে আপনার আবেদনটি সম্পন্ন করুন।

অবশ্যই প্রথমে পুরো প্রক্রিয়াটি ভালভাবে পড়ে বুঝে নিন। তারপর আবেদন করবেন। আপনি আপনার স্মার্টফোন থেকেও আবেদনটি করতে পারবেন।

যদি আপনি কম্পিউটার বা স্মার্টফোন ব্যবহার করতে নিজেকে খুব দক্ষ মনে না করেন। এক্ষেত্রে দক্ষ কারো সহায়তা নিন। কারণ কোন প্রকার ভুল হলে এটা সংশোধন করা একটি ঝামেলাপূর্ণ কাজ। তাই সতর্কতা অবলম্বন করুন।

ধাপ 1: বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট ওয়েবসাইটে অ্যাকাউন্ট তৈরি করুন

www.epassport.gov.bd ওয়েবসাইটে যান। তারপর উপরে থেকে Apply Online Menu এ ক্লিক করুন। এখন আপনার বাংলাদেশ মিশন নির্বাচন করুন যেখানে আপনি আবেদন করতে চান।

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ

Are you applying from Bangladesh? এখানে No সিলেক্ট করুন। তারপর Country সিলেক্ট করুন United States of America এবং আপনি যে বাংলাদেশ মিশনের অধীনে আছেন তা বাছাই করুন। পরের ধাপে যেতে Continue বাটনে ক্লিক করুন। নিচের মত একটি পেইজ আসবে।

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ

এখানে আপনার সচল ইমেইল এ্যাড্রেসটি দিন এবং I am human লেখার পাশে চেক বক্সটি ক্লিক করে ক্যাপচা পূরণ করুন। তারপর আবার Continue করুন। এরপর নিচের মত একটি পেইজ পাবেন।

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন

এই ফরমে আপনার একাউন্টের জন্য ক্যাপিটাল বা ব্লক লেটারে 6 টি অক্ষর এবং ন্যূনতম 1 অক্ষর সম্বলিত একটি পাসওয়ার্ড দিন। তারপর নাম ও মোবাইল নম্বর দিয়ে Create Account বাটনে ক্লিক করে একাউন্টটি তৈরি করুন।

পাসপোর্ট আবেদনে Full Name কিভাবে লিখবেন

আপনি শুধুমাত্র NID বা BRC দিয়ে ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন। সুতরাং, আপনাকে অবশ্যই আপনার (Full Name) সম্পূর্ণ নাম লিখতে হবে যেমনটি আপনার এনআইডি কার্ড বা জন্ম নিবন্ধন সনদে আছে।

জন্ম নিবন্ধন দিয়ে আবেদনের ক্ষেত্রে অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে যে এর তথ্য অনলাইনে পাওয়া যায়। এখানে আপনার জন্ম নিবন্ধন যাচাই করতে পারবেন।

পাসপোর্টে Given Name

পাসপোর্টে Given Name বা প্রদত্ত নাম First Name বা পূর্বনাম হিসাবেও পরিচিত। প্রদত্ত নাম বলতে বুঝায় নামের প্রথম অংশ যার দ্বারা একজন ব্যক্তিকে চিহ্নিত করা যায়। আপনি পাসপোর্ট আবেদনে আপনার প্রদত্ত নাম হিসাবে প্রথম অংশ/অংশগুলি লিখতে পারেন।

যদি আপনার নামের ২টি অংশ থাকে যেমন মোহাম্মদ কামাল, Given Name হিসাবে মোহাম্মদ লিখুন।

যদি আপনার নামের 3টি অংশ থাকে যেমন মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন, তাহলে Given Name হিসেবে প্রথম ২টি অংশ অর্থাৎ “মোহাম্মদ কামাল” লিখুন।

পাসপোর্টে Surname

Surname কে উপাধি বা Last Name বা পারিবারিক নাম হিসাবেও বলা হয়। পরিবারের সকল সদস্যের জন্য নামের শেষে একটি উপাধি ব্যবহার করা হয়। উপাধিগুলি হল, চৌধুরী, তালুকদার, হোসেন ইত্যাদি। পাসপোর্টের আবেদনের জন্য, আপনাকে অবশ্যই আপনার নামের শেষ অংশ/অংশগুলি উপাধি হিসাবে লিখতে হবে। উদাহরণস্বরূপ, মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন, মোহাম্মদ কামাল প্রদত্ত নাম (Given Name) এবং উদ্দিন উপাধি (Surname) হবে।

Mobile Phone Number in Passport Application

মোবাইল নম্বর হিসেবে অবশ্যই আপনার ইউএস ফোন নম্বর লিখুন যা আপনার সাথে যোগাযোগ করতে ব্যবহৃত হবে।

তারপর I am human লেখার পাশে চেক বক্সে টিক দিয়ে ক্যাপচা পূরণ করুন এবং Create Account বাটনে ক্লিক করুন। এর পরে, আপনি আপনার মেইলে একটি অ্যাক্টিভেশন লিঙ্ক পাবেন। মেইলে লগইন করুন এবং লিঙ্কে ক্লিক করে আপনার পাসপোর্ট অ্যাকাউন্ট Active করুন।

ধাপ 2: বাংলাদেশ পাসপোর্ট রিনিউ আবেদন ফর্ম পূরণ করুন

সফল অ্যাক্টিভেশনের পরে, ডানপাশের উপর থেকে Sign in ক্লিক করে, Email ও Password দিয়ে আপনার অ্যাকাউন্টে লগ ইন করুন।

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট রিনিউ আবেদন

Passport Type (পাসপোর্টের ধরন)

একটি নতুন ই-পাসপোর্টের জন্য আবেদন করুন ক্লিক করুন তারপর পাসপোর্ট-টাইপ সাধারণ পাসপোর্ট বা অফিসিয়াল পাসপোর্ট নির্বাচন করুন। আপনি যদি একজন বাংলাদেশ সরকারী চাকুরী ধারক হন এবং আপনার একটি সরকারী আদেশ (GO) বা NOC থাকে তবে আপনি একটি অফিসিয়াল পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারেন।

Personal Information (ব্যক্তিগত তথ্য)

এখন নিম্নলিখিত পাসপোর্ট তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করুন। ফরম পূরণে সতর্ক থাকুন। আপনি যদি কোনও ভুল করে থাকেন তবে আপনি নিজেই এই তথ্য সংশোধন করতে পারবেন না।

বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট আবেদন ফরম

আপনি যদি নিজের জন্য আবেদন করেন তবে টিক বক্সে ক্লিক করুন (I apply for myself)। আপনি যদি অন্য কোনও জন্য আবেদন করেন তবে টিক বক্সটি চেক করবেন না।

NID বা BRC যে ডকুমেন্ট দিয়ে আবেদন করছেন সেই ডকুমেন্ট অনুসারে নাম, জন্ম তারিখ এবং জন্মের জেলা লিখুন। অর্থাৎ আপনি এনআইডি দিয়ে আবেদন করলে এনআইডি অনুসারে লিখবেন। আর জন্ম নিবন্ধন দিয়ে আবেদন করলে তা অনুসারে লিখবেন। আপনার পেশা সঠিকভাবে নির্বাচন করুন। আপনি আপনার পেশার প্রমাণ দেখাতে পারেন।

Address (ঠিকানা)

এখন আপনার স্থায়ী এবং বর্তমান ঠিকানা পূরণ করুন। স্থায়ী ঠিকানা বাংলাদেশে আপনার বাড়ির ঠিকানা হওয়া উচিত। বর্তমান ঠিকানা আপনার USA ঠিকানা হতে হবে।

আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট অনলাইন আবেদন

আপনি যেখান থেকে আবেদন করতে চান সেই বাংলাদেশ মিশন নির্বাচন করুন। তারপর পরবর্তী ধাপের জন্য Save and Continue বাটনে ক্লিক করুন।

ID Documents (পরিচয় সংক্রান্ত ডকুমেন্ট)

আপনি যখন পাসপোর্ট রিনিউয়ের জন্য আবেদন করছেন, আপনাকে আপনার পুরানো এমআরপি পাসপোর্টের তথ্য, এনআইডি বা জন্ম নিবন্ধন নম্বর এবং আবেদন করার কারণগুলি প্রদান করতে হবে। বর্তমানে, পাসপোর্ট রিনিউ আবেদনের ৬ টি কারণ লিস্টে আছে।

Reasons to apply for passport (পাসপোর্ট রিনিউ আবেদনের কারণ)
  • Conversion to E-passport – you want to change your MRP passport to e-Passport.
  • Expired – Your passport is expired.
  • Lost/Stolen – Your passport is lost so you need a new e-passport.
  • Data Change – You want to correct mistakes or wrong information in your passport.
  • Unusable – Your passport is dameged or unusable anyhow.
  • Other – For any other reasons.
বাংলাদেশ পাসপোর্ট রিনিউ করার আবেদন
বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট রিনিউ আবেদন

আপনাকে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর বা জন্ম নিবন্ধন নম্বর (যে কোন ১টি) প্রদান করতে হবে। নম্বরটি খুব সাবধানে লিখুন। তারপর Save and Continue বাটনে ক্লিক করুন।

Parental Information (পিতামাতার তথ্য)


এ ধাপে আপনার পিতামাতার তথ্য প্রদান করতে হবে। নিম্নলিখিত বিষয়গুলো মনে রাখবেন;

  • আপনার এনআইডি কার্ড বা বিআরসি-তে আপনার বাবা এবং মায়ের নামগুলি লিখুন।
  • নামের আগে বা পরে Late বা অন্য কোনো অতিরিক্ত শব্দ যোগ করবেন না যদি না এটি আপনার NID বা BRC-তে থাকে। আপনার এনআইডিতে যদি আপনার বাবার নাম মরহুম কামরুল ইসলাম হয়, তবেই আপনি পাসপোর্টের আবেদনে মরহুম কামরুল ইসলাম লিখতে পারবেন।
বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট রিনিউ

পিতা-মাতার জাতীয়তা এবং পেশা নির্বাচন করুন। আপনার পিতামাতার NID নম্বর ঐচ্ছিক। এটা না দিলেই ভালো।

অভিভাবকের নাম শুধুমাত্র তখনই প্রযোজ্য যদি আপনার পিতা বা মাতা ছাড়া অন্য একজন আইনী অভিভাবক থাকে।

Spouse Information (দাম্পত্যের তথ্য)

আপনি বিবাহিত, বিধবা বা বিধবা হলে, আপনাকে আপনার স্ত্রীর তথ্য প্রদান করতে হবে। এখানে সঠিক তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করুন। সংরক্ষণ ক্লিক করুন এবং পরবর্তী ধাপের জন্য চালিয়ে যান।

Emergency Contact (জরুরী যোগাযোগ)

পাসপোর্ট অ্যাপ্লিকেশনের জন্য, আপনাকে জরুরি যোগাযোগের বিশদ প্রদান করতে হবে। আপনার অনুপস্থিতিতে এই ব্যক্তির সাথে যোগাযোগ করা হবে। তাই সঠিকভাবে তথ্য লিখুন।

জরুরী যোগাযোগের ব্যক্তি আপনার আত্মীয় বা বন্ধু হতে পারে।

Passport Option and Delivery Type (পাসপোর্ট এবং ডেলিভারির ধরন)

পাসপোর্টে আপনি কতগুলি পৃষ্ঠা চান 48 নাকি 64 তা নির্বাচন করুন। এছাড়াও পাসপোর্টের মেয়াদ 5 বা 10 বছর নির্বাচন করুন। আপনি যদি 10 বছরের জন্য আপনার পাসপোর্ট নবায়ন করছেন, তাহলে আপনার 64টি পৃষ্ঠা নির্বাচন করা উচিত। 48 পৃষ্ঠা 10 বছর কভার করবে না।

তারপর ডেলিভারি টাইপ Normal বা Express ডেলিভারি সিলেক্ট করুন।

আমেরিকায় বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট ফি

ধাপ 3: আবেদন যাচাই করুন এবং জমা দিন

সবশেষে আপনার আবেদনের তথ্যসমূহ পুনরায় যাচাই করে দেখুন যে কোন বানান বা তথ্যে ভুল আছে কিনা। সাবধানে যাচাই নিশ্চিত হোন যে সব তথ্য সঠিক এবং আপনি কোন ভুল করছেন না।

আপনি যদি পাসপোর্ট আবেদনে কোনও ভুল করেন তবে আপনি এটি নিয়ে সমস্যায় পড়তে পারেন। তাই বারবার চেক করুন। সব ঠিক থাকলে Confirm and Proceed to Payment বাটনে ক্লিক করে এগিয়ে যান।

ধাপ 4: আবেদন জমা দিন এবং প্রিন্ট কপি নিন

অফলাইন পেমেন্ট নির্বাচন করুন এবং আপনার আবেদন জমা দিন। তারপর 2টি ফাইল ডাউনলোড করুন, 1) Application Summery এবং 2) Online Registration Form। A4 আকারের কাগজে উভয় পৃষ্ঠায় নিবন্ধন ফর্ম (3 পৃষ্ঠা) প্রিন্ট করুন।

ধাপ 5: ই-পাসপোর্ট পেমেন্ট এবং এনরোলমেন্ট

পাসপোর্ট তালিকাভুক্তির জন্য আপনাকে একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে হবে। বর্তমানে, পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত Walk-In অ্যাপয়েন্টমেন্ট স্থগিত করা হয়েছে। কিন্তু, ই-পাসপোর্ট বায়োমেট্রিক এনরোলমেন্টের জন্য সীমিত পরিসরে ব্যক্তিগত পরিষেবা প্রদান করা হবে।

অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেওয়ার পরে, আপনি আপনার পাসপোর্ট ফি দিতে এবং আবেদনপত্র জমা দিতে পারেন। পাসপোর্ট তালিকাভুক্তির জন্য কীভাবে অ্যাপয়েন্টমেন্ট করবেন তা দেখুন।

ই-পাসপোর্টের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • আবেদন সামারি পেইজ
  • অনলাইন রেজিস্ট্রেশন ফর্ম
  • ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধের ডকুমেন্ট
  • NID বা BRC ফটোকপি
  • পুরাতন পাসপোর্ট/ পাসপোর্ট তথ্য পৃষ্ঠার ফটোকপি/ জিডি কপি (হারিয়ে গেলে)
  • পেশার প্রমাণ (যদি প্রয়োজন হয়): বায়োমেট্রিক এনরোলমেন্টের সময় জমা দেওয়ার জন্য ছাত্রদের অবশ্যই তাদের স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের একটি কপি আনতে হবে।

বাংলাদেশ দূতাবাস এবং কনস্যুলেট অফিসে অর্থ প্রদান এবং অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে। 3টি ভিন্ন মিশনের জন্য বিস্তারিত তথ্য নীচে দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ দূতাবাস ওয়াশিংটন ডিসি থেকে বাংলাদেশ পাসপোর্ট রিনিউ

ওয়াশিংটন ডিসি থেকে বাংলাদেশের ই-পাসপোর্ট নবায়নের জন্য, আপনাকে নিচের ধাপগুলি সম্পূর্ণ করতে হবে;

  • পাসপোর্ট নবায়নের জন্য অনলাইনে আবেদন করুন।
  • আবেদনের কপিগুলো ডাউনলোড করুন এবং এগুলো প্রিন্ট করে নিন.
  • ই-পাসপোর্টের জন্য বায়োমেট্রিক তালিকাভুক্তির জন্য অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিন।
  • পাসপোর্ট রিনিউ করার জন্য ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করুন।
  • অবশেষে, আপনার সমস্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে দূতাবাস অফিসে যান এবং আপনার এনরোলমেন্ট সম্পন্ন করুন।

ওয়াশিংটন ডিসি থেকে কিভাবে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিবেন

বাংলাদেশ দূতাবাস ওয়াশিংটন ডিসি থেকে অনলাইন অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য আপনার পাসপোর্ট আবেদনের সামারি পেইজ (Application Summery) অথবা কনফার্মেশন পেইজ (Confirmation Page) সহ [email protected]-এ একটি ইমেল করুন।

ওয়াশিংটন ডিসি ই পাসপোর্ট এপয়েন্টমেন্ট

নিউইয়র্ক থেকে বাংলাদেশ পাসপোর্ট রিনিউ

নিউইয়র্ক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের ই-পাসপোর্ট নবায়নের জন্য আপনাকে নিচের ধাপগুলি সম্পূর্ণ করতে হবে;

  • পাসপোর্ট নবায়নের জন্য অনলাইনে আবেদন করুন।
  • অ্যাপ্লিকেশন কপি ডাউনলোড করুন এবং প্রিন্ট আউট করুন।
  • ই-পাসপোর্টের জন্য বায়োমেট্রিক তালিকাভুক্তির জন্য অ্যাপয়েন্টমেন্টের জন্য অনলাইনে আবেদন করুন।
  • ই পাসপোর্ট ফি পরিশোধ করুন।
  • অবশেষে, অ্যাপয়েন্টমেন্টের তারিখে আপনার সমস্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ কনস্যুলেট জেনারেল অফিস, নিউ ইয়র্ক যান এবং আপনার এনরোলমেন্ট সম্পন্ন করুন।

নিউইয়র্ক থেকে ই-পাসপোর্টের জন্য অ্যাপয়েন্টমেন্ট কিভাবে নিবেন

নিউইয়র্ক থেকে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিতে, আপনাকে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। এজন্য ভিজিট করুন- Apply online for Appointment । অনলাইনে আবেদন ফরমটি পূরণ করুন এবং আবেদন জমা দিন। এখানে ফর্মের দৃশ্য।

নিউইয়র্ক থেকে পাসপোর্ট অ্যাপয়েন্টমেন্ট ফরম

লস এঞ্জেলেস থেকে বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট রিনিউ

লস অ্যাঞ্জেলেস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বাংলাদেশের ই-পাসপোর্ট রিনিউ করার জন্য, আপনাকে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি সম্পূর্ণ করতে হবে;

  • পাসপোর্ট নবায়নের জন্য অনলাইনে আবেদন করুন।
  • আবেদন কপি ডাউনলোড করুন এবং প্রিন্ট কপি নিন।
  • বায়োমেট্রিক এনরোলমেন্টের জন্য কনস্যুলেট জেনারেল অফিসে যোগাযোগ করুন।
  • পাসপোর্টের জন্য ফি পরিশোধ করুন।
  • তারপর, কনস্যুলেট জেনারেল অফিস, লস এঞ্জেলেসে আপনার সমস্ত প্রয়োজনীয় নথি নিয়ে যান এবং আপনার তালিকাভুক্তি সম্পূর্ণ করুন।

লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে ই পাসপোর্টের অ্যাপয়েন্টমেন্ট

আমরা বর্তমানে পাসপোর্ট তালিকাভুক্তির পদ্ধতি সম্পর্কে সঠিক তথ্য খুঁজে পাচ্ছি না। এই তথ্যের জন্য লস এঞ্জেলেস কনস্যুলেট জেনারেল অফিসে যোগাযোগ করুন।

আমেরিকা থেকে বাংলাদেশ ই পাসপোর্ট রিনিউ ফি

আমেরিকায় বাংলাদেশ দূতাবাস এবং কনস্যুলেট জেনারেল অফিস থেকে ই পাসপোর্ট ফি’র তালিকা নিচে দেয়া হল।

48 পাতা, 5 বছরRegular- USD 110.00 (including all charges)
Express- USD 165.00 (including all charges)
48 পাতা, 10 বছরRegular- USD 137.50 (including all charges)
Express- USD 192.50 (including all charges)
64 পাতা, 5 বছরRegular- USD 165.00 (including all charges)
Express- USD 220.00 (including all charges)
64 পাতা, 10 বছর Regular- USD 192.50 (including all charges)
Express- USD 247.50 (including all charges)
E passport fee from USA

কিভাবে ফি জমা দিবেন তা জানতে পড়ুন- আমেরিকা থেকে ই পাসপোর্ট ফি জমা দেয়ার নিয়ম

আমি আশা করি লেখাটি আপনার উপকারে আসবে। পাসপোর্ট, এনআইডি, জন্ম নিবন্ধন ও অনলাইন সেবা সংক্রান্ত নতুন এবং প্রয়োজনীয় সকল তথ্যের জন্য ভিজিট করতে থাকুন- eservicesbd.com

Similar Posts

One Comment

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।