ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার নিয়ম

অনলাইনে ই পাসপোর্ট আবেদনে ভুল করেছেন? জানুন ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার নিয়ম এবং কিভাবে ই পাসপোর্ট আবেদন সংশোধন করবেন।

ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার নিয়ম

অনলাইনে ই পাসপোর্ট আবেদন সাবমিট করার পর দেখতে পেলেন আবেদনে কোন তথ্যে ভুল করেছেন। কিন্তু সমস্যা হলো, E Passport Application করার পর আপনি নিজে এটি সংশোধন করতে পারবেন না।

তাই আপনাকে e passport আবেদনটি সংশোধন অথবা বাতিল করার আবেদন করতে হবে। আপনার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আপনার আবেদনটি পাসপোর্ট অফিস সংশোধন করে দিবে বা বাতিল করে দিবে।

তবে সবচেয়ে ভাল হয়, ছোটখাট কোন ভুলের জন্য সংশোধনের আবেদন করা। এতে খুব কম সময়েই আপনার সমস্যাটি সমাধান করতে পারবেন।

যদি পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করেন, সেক্ষেত্রে আপনাকে আবার নতুন আবেদন করতে হবে। এজন্য আপনার অনেক সময় লেগে যাবে।

এখানে জানাবো, কিভাবে আপনি অনলাইনে পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার আবেদন লিখবেন, বাতিলের পর কিভাবে আবার নতুন আবেদন করবেন ইত্যাদি।

পাসপোর্ট আবেদনটি অফিসে জমা না দিয়ে স্বয়ংক্রীয়ভাবে ৬ মাস পার বাতিল হয়ে যাবে। কিন্তু ৬ মাস অপেক্ষা করার কোন মানে নেই।

আপনি যদি ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার নিয়ম এবং পুনরায় ই পাসপোর্ট আবেদন সংশোধন করার নিয়ম জানেন আপনাকে ৬ মাস অপেক্ষা করতে হবে না।

তাহলে জেনে নিই কিভাবে e passport application cancel করবেন এবং পূনরায় সংশোধন করে আবেদন করবেন।

ই পাসপোর্ট অনলাইন আবেদন বাতিল করার নিয়ম

অনলাইনে করা ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার জন্য পাসপোর্ট আঞ্চলিক অফিসের সহকারী পরিচালক বরাবর একটি লিখিত আবেদন করুন। আবেদনের সাথে অনলাইন আবেদনের Application Summery টি সংযুক্ত করে দিন। আবেদন গ্রহণ করার পর তিনি আপনার আবেদনটি সেই দিনই বাতিল করতে পারেন।

পাসপোর্ট আবেদনে ভুল থাকলে পাসপোর্ট অফিস আপনার আবেদন গ্রহণ করতে চাইবে না। যদিও ছোট-খাট কোন ভুল হলে, পাসপোর্ট অফিসে তা জানান এবং অনুরোধ করে তা সংশোধন করে নিন। সেজন্য আপনাকে সংশোধনের জন্য লিখিতভাবে একটি আবেদন করতে হবে।

যদি আপনি আবেদনটি বাতিল করে নতুনভাবে আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে।

অনেক সময় দেখা যায়, পাসপোর্ট অফিসে অনেক দালাল আবেদন বাতিল করে দেয়ার জন্য আপনার কাছে ৫০০-১০০০ টাকা চাইতে পারে।

কোন প্রয়োজন নেই দালালকে বাড়তি টাকা দেয়ার। শুধুমাত্র পাসপোর্ট অফিসের সহকারী উপ-পরিচালক বরাবর স্বহস্তে একটি দরখাস্ত লিখে তার সাথে অনলাইন আবেদনের Application Summery কপিটি সংযুক্ত করে জমা দিয়েই আবেদনটি বাতিল করাতে পারবেন।

পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার আবেদন লেখার নিয়ম

তারিখ: . . . . . . . . . . . . . .

বরাবর

সহকারী পরিচালক

আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস

রাঙ্গামাটি।

বিষয়: ই-পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার আবেদন

জনাব,

বিনীত নিবেদন এই যে, আমি (নাম) ……………………, পিতা:……………………., মাতা: …………………….। আমি গত ……../……./………. তারিখে ই পাসপোর্টের একটি জন্য আবেদন করি যার অনলাইন রেজিঃ আইডি নং OID100380**। কিন্তু ভুলবশত আমার পাসপোর্ট আবেদনে আমার (নাম/জন্ম তারিখ/মোবাইল নম্বর/জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর/জন্ম নিবন্ধন নম্বর/অন্য কোন তথ্য) ভুল লেখা হয়। এমতাবস্থায় আবেদনটি বাতিল করে আমি নতুনভাবে আবেদন করতে চাই।

অতএব, মহোদয়ের নিকট বিনীত আবেদন এই যে, উপরিউক্ত সমস্যার কথা বিবেচনা করে আমার ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করতে আপনার একান্ত মর্জি হয়।

বিনীত নিবেদক-

(নাম)

বড়ইছড়ি, কাপ্তাই, রাঙ্গামাটি।

মোবাইল- 01814000000

পুনরায় ই পাসপোর্ট আবেদন করার নিয়ম

আপনার ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার পর, আপনার ই-মেইলে মেসেজ আসবে যে আপনার আবেদন বাতিল করা হয়েছে। আপনার প্রোফাইল থেকে নতুনভাবে আবেদন করতে পারবেন।

যদি ওই প্রোফাইল থেকে আবেদন করা না যায়, নতুন একটি ইমেইল অ্যাড্রেস দিয়ে আবার একটি প্রোফাইল করে আবেদন করতে পারেন।

পাসপোর্ট আবেদনটি পূরণ করার সময় Submit করার পূর্বে আপনার তথ্যগুলো বারবার চেক করে দেখুন কোন ভুল আছে কিনা। Submit করার পূর্ব পর্যন্ত যতবার, যেখানে খুশি সংশোধন করতে পারবেন।

একবার সাবমিট করা হয়ে গেলে আপনি আর কোন সংশোধন করতে পারবেন না। তাই আবেদন করার পূর্বে কোন কোন জিনিসগুলো ভুল হতে পারে বার বার যাচাই করে নিন।

পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করলে কি চালান/পেমেন্ট নষ্ট হবে?

না, পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করলেও চালান বাতিল হবে না। কারণ ই পাসপোর্টের এ চালান করা হয় আপনার এনআইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র ও নাম দিয়ে। এবং এই চালানের মেয়াদ ৬ মাস।

আপনি পুনরায় ই পাসপোর্ট আবেদন করলে একই চালান জমা দিতে পারবেন। একদমই চিন্তার কারণ নেই।

তবে মনে রাখবেন, পূর্বের আবেদনে পাসপোর্টের মেয়াদ, পৃষ্ঠা ও ডেলিভারীর ধরণ যেমন ছিল, পুনরায় একই ধরণের ই পাসপোর্ট আবেদন করবেন। কারণ, আপনি আগের চালানটিই ব্যবহার করতে যাচ্ছেন।

যেমন, আগে যদি ৬৪ পাতা ও ১০ বছর মেয়াদী সাধারণ পাসপোর্টের ফি জমা দিয়ে থাকেন, পুনরায় আবেদন করতে একই রকম পাসপোর্টের আবেদন করবেন। যেহেতু আপনি আগের চালানটিই ব্যবহার করতে যাচ্ছেন।

তাহলে আবেদন বাতিল করলেও একই চালান সংশোধিত আবেদনের সাথে জমা দিতে পারবেন।

শেষকথা

ই পাসপোর্ট আবেদনে ভুল হলে তা নিয়ে খুব টেনশনের কোন কারণ নেই। তবে মনে রাখবেন ভুল তথ্য দিয়ে কখনোই আবেদন জমা দিবেন না। কারণ পাসপোর্ট এনরোলমেন্ট হওয়ার পর পরবর্তীতে এই ভুল তথ্যের কারণে আপনার পাসপোর্ট প্রিন্ট না হয়ে ফেরত আসবে।

এজন্য, তথ্য ভুল থাকলে তা অবশ্যই পাসপোর্ট অফিসে জানাবেন। যদি সম্ভব হয় সেখানে সংশোধন করিয়ে নিবেন। সেটা সম্ভব না হলে, পাসপোর্ট আবেদনটি বাতিল করে পুনরায় নতুনভাবে আবেদন করুন।

আশা করি, ই পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করার নিয়ম এবং e passport আবেদন সংশোধন করার নিয়ম সম্পর্কে অবগত করতে পেরেছি। আপনার যদি সম্পর্কিত কোন প্রশ্ন থেকে থাকে, তবে কমেন্ট করতে ভুলবেন না যেন।

পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করা নিয়ে প্রশ্ন-উত্তর

পাসপোর্ট আবেদন বাতিল করলে কি পাসপোর্ট ফি’র চালান বাতিল হবে?

না, বাতিল হবে না। পাসপোর্টের ফি পরিশোধ করা হয় জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে এ চালানের মাধ্যমে। এই চালানের মেয়াদ থাকবে ৬ মাস। তাই ৬ মাসের মধ্যেই আবার আবেদন করতে হবে।

পাসপোর্ট আবেদনে কোন তথ্যে ভুল হলে কি আবেদন বাতিল করতে হবে?

না, পাসপোর্ট আবেদনে কোন ভুল হলে প্রথমে তা পাসপোর্ট অফিসে জানান। কিছু তথ্য পাসপোর্ট অফিসে মৌখিক অনুরোধ/ লিখিত আবেদন করে আবেদনটি সংশোধন করিয়ে নিতে পারেন। যদি সংশোধন করা না যায়, তখনি আবেদন বাতিল করে নতুনভাবে আবেদন করবেন।

পাসপোর্ট সংক্রান্ত আরো তথ্যের লিংক

সকল আপডেট তথ্যের জন্য Facebook Page

Similar Posts

10 Comments

  1. আমি আমার ই- পাসপোর্ট এর জন্য আবেদন করেছি ৯ মাস হয়ে গেছে ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়ে ফেলেছি এমতাবস্থায় আমার এই আবেদনটি বাতিল করতে চাচ্ছি বাতিল করা যাবে কি যাবেনা একটু জানালে উপকৃত হব।

  2. এটা জমা দেয়ার পদ্ধতি খুলে বলেন নি, তা কি অনলাইনে বাতিল হবে না লিখিত দরখাস্ত নিয়ে স্বহস্তে অফিসে হাজির হতে হবে।জানাবেন।

  3. আমি ই-পাসপোর্ট এর জন্য অনলাইন আবেদন করেছিলাম। মেরিট স্ট্যাটাসে – বিবাহিত উল্লেখ করেছে। আমার ম্যারেজ সার্টিফিকেট ইন্ডিয়ার। অর্থাৎ আমি বিয়ে করেছি ইন্ডিয়া থেকে। ইন্ডিয়ার ম্যারেজ সার্টিফিকেট কি গ্রহণযোগ্য হবে।

  4. আমি ই-পাসপোর্ট এর জন্য অনলাইন আবেদন করেছিলাম। মেরিট স্ট্যাটাসে – বিবাহিত উল্লেখ করেছে। আমার ম্যারেজ সার্টিফিকেট ইন্ডিয়ার। অর্থাৎ আমি বিয়ে করেছি ইন্ডিয়া থেকে। ইন্ডিয়ার ম্যারেজ সার্টিফিকেট কি গ্রহণযোগ্য হবে।

  5. নমস্কার দাদা, আমি অনলাইনে ফর্ম পূরণ করি, সাবমিত ও করেছি, কিন্তু কিছু ভুল থাকার কারণে ফর্ম জমা দিই নাই, এখন আবেদন পত্র জমা দেওয়ার মেয়াদ শেষ হয়েছে, তবুও আমি এপ্লিকেশন বাতিল করতে পারছিনা। গত ২১ জুন পাসপোর্ট অফিসে বাতিল করার জন্য আবেদন দিয়েছি, তারা বলেছে ৭২ ঘন্টা নাকি সময় লাগবে বাতিল হতে, কিন্তু এখনো ডিলেট অপশন আসে নাই, এখন তারা কাজ করে দিয়েছে নাকি দেয়নাই, তাকি তাদেরকে টাকা খাওয়াইতে হবে কিছুই বৃঝতেছিনা, প্লিজজ দাদা একটু হেল্প করুন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।